1. [email protected] : Reporter : Reporter
  2. [email protected] : MJHossain : M J Hossain
  3. [email protected] : isaac10j54517 :
  4. [email protected] : janetbaader69 :
  5. [email protected] : katherinflower :
  6. [email protected] : makaylafriday8 :
  7. [email protected] : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. [email protected] : meredithbriley :
  9. [email protected] : olamcevoy1234 :
  10. [email protected] : roseannaoreily4 :
  11. [email protected] : sebastianstanfor :
  12. [email protected] : tangelamedina :
  13. [email protected] : teenaligar6 :
  14. [email protected] : xugmerri6352 :
  15. [email protected] : yzvhildegarde :
চট্টগ্রামের মেয়ে নাসরীন হীরার সফল উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প - BBC News 24

শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ১০:৫০ পূর্বাহ্ন

সবার দৃষ্টি আকর্ষন:
অ্যাসাইনমেন্ট ২০২১: তৃতীয় সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট এর উত্তর লিখার কাজ চলছে। সর্বশেষ উপডেট পেতে সাথেই থাকুন
ব্রেকিং নিউজ :
কক্সবাজারে ৬ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব’র নিন্দা পশ্চিম বাকলিয়া সমাজ কমিটি ও সচেতন নাগরিক সমাজের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ দরিদ্র কৃষকের পাকা ধান কেটে ঘরে তুলে দেন শরণখোলা উপজেলা ছাত্রলীগ ৬ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে পাহাড় খেকোর মামলা, দুই বাংলা অনলাইন সাংবাদিক ফোরাম কক্সবাজার শাখ’র নিন্দা ও প্রতিবাদ ১৪ আসনে মহীয়সী নারী শিরিন রোকসানা নৌকার মাঝি হতে চান লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এর জন্মদিন ৬ মে বিলাইছড়ি জোন কর্তৃক অবৈধ কাঠ উদ্ধার সড়ক দুর্ঘটনায় মনোতোষ নামে এক যুবকের মৃত্যু মৌলভীবাজারে কওমী মাদ্রাসা দুস্থ শিক্ষক ও ইমামদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার বিতরণ মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসনের কর্মচারীেেদর মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ
চট্টগ্রামের মেয়ে নাসরীন হীরার সফল উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প

চট্টগ্রামের মেয়ে নাসরীন হীরার সফল উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প

অনলাইন ডেস্কঃ একজন সফল উদ্যোক্তা হওয়া অনেক কঠিন। অনেক বাঁধা অতিক্রম করেই একজন সফল উদ্যোক্তা হয়ে উঠা সম্ভব। এক এক সিড়ি পেরিয়ে আস্তে আস্তে ধাপ এগুতে হবে।তাড়াহুড়ো করলে পা পিছলানোর ভয় আছে। একজন উদ্যোক্তা হতে আমাকে অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে। স্বামী, সংসার, পরিবার থেকে অনেক বাধা পেতে হয়েছে, শুনতে হয়েছে সমাজ থেকে অনেক বাজে মন্তব্য। কিন্তু আবার উল্টো এই পরিবারই আমাকে সাহায্য করেছে প্রেরনা যুগিয়েছে কাজের। সাহায্য করেছে সমাজের অনেক মানুষ। আর যাদের কারনে চজ আমি স্বাবলম্বী একজন সফল নারী উদ্যোক্তা।আমাদের সমাজে খারাপ লোক যেমন আছে তেমনি ভালো লোক ও আছে। তবে আগে নিজেকে চিনতে হবে, নিজেকে ভালোবাসতে হবে। সবচেয়ে বড় কথা নিজেকে দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করতে হবে আমি পারবো। তবেই একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হতে পারবে।

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতে চান?
আসসালামু আলাইকুম, আমি নাসরিন আকতার হীরা। ঢাকা মুন্সিগঞ্জ আমার বাড়ি হেও আমি চট্টগ্রামের মেয়ে। চট্টগ্রামেই আমার জন্ম এবং এখানেই থাকি।বতর্মানে আমি একজন সফল নারী উদ্যোক্তা।

উদ্যোক্তা আগ্রহ কিভাবে তৈরি হলো?

3rd week assignment 2021

হঠাৎ করেই উদ্যোক্তা হলাম। যাত্রা শুরু ফেইম এ আমার মেয়ে নাটক করে।তাদের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে অভিভাবকদের পার্টিসিপেট করতে বলল্লো বিভিন্ন ষ্টোল নিয়ে।কেউ করলো না। আমি এক ভাবি নিয়ে একাই পিঠা আর বুটিকস্ এর ষ্টোল দিলাম সাহস কর। শুরু হলো শখের যাত্রা। একজন নাট্যকর্মী হয়ে পিঠা বিক্রি করছি, চা বিক্রি করছি, কাপড় বিক্রি করছি যা পারিনা তাই রান্না করে নিয়ে বিক্রি করছি। আর খেয়ে সবাই বাহবা ও উৎসাহ দিচ্ছে।তখন থেকে শক্ত করে আঁকড়ে ধরলাম এই জীবিকা। এটা চার বছর আগের ঘটনা। তখন থেকে এ পর্যন্ত আঁকড়ে ধরে আছি একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হিসাবে। প্রতিষ্ঠিত হয়েছি নিজে নিজের বুদ্ধি ও পরিশ্রম দিয়ে।

 
hostseba.com
 

আপনি এই অনলাইন বিজনেসে কাকে আইডল হিসেবে দেখেছেন?
আমি আইডল হিসাবে সবার আগে আমার “মা” তারপর বাবা। ছোটবেলা থেকেই দেখেছি মা সেলাই করতো আর মজার মজার খাবার রান্না করতো। আর আমরা লেখা পড়া করতাম। কখনো ভাবিনি এ পর্যায়ে এসে দেখতে দেখতে বড়ো হওয়া জিনিস গুলোর হাল আমাকে ধরতে হবে। যখনি ক্লান্ত হয়ে পরি বাবা পাশে দাড়িয়ে পড়ে। মা অসুস্থ থাকলেও অনায়াসে পিঠা বানাতে সাহায্য করে। আমার সন্তানদের দেখাশোনা করে। আজ তাদের জন্য আমি সব কিছুই জয় করতে পারছি পিছনে ফিরে তাকাতে হয় না।যখন যে ভাবে চাই সে ভাবেই কাজ করার পথ দেখাচ্ছে। আমার জীবনে তারা ছাড়াও আরও একজনের বড়ো অবদান রয়েছে, আর সে হলো আমার মেয়ে। যখন কেউ থাকেনা তখন ও পাশে দড়িয়ে আমরা ষ্টোলের কাস্টমার সামলায়। তখন বুঝাই যায় না মাত্র ১২ বছরের মেয়ে মাকে এ ভাবে সাহায্য করতে পারে। যা আমরা কখনোই করিনি।

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে মনে করেন?
আলহামদুলিল্লাহ আল্লাহর অসিম কৃপায় আমি অনেক সফল। তার প্রমান বলছি-
আমি একজন “সিঙ্গেল মাদার ” এবং দুই সন্তানের মা আমি। মেয়ে ১২ বছর আর ছেলে চার বছর। আমার মাসিক খরচ ২৫/৩০ হাজার টাকা। খরচ পোষাতে পারছি না বলে ক্যান্টনমেন্ট স্কুল থেকে নিয়ে নর্মাল স্কুলে ভর্তি করেছি। আজ শতশত মানুষের বালোবাসা ও আল্লাহ তালার রহমত আছে বলে আমি একাই উপার্জন করে সংসারের সম্পূর্ণ চাহিদা পূরন করতে পরি। আমার সফলতার সাথে আরো কিছু নারী পুরুষ আছে যারা আমার এই প্রতিষ্ঠানে কাজ করে। তাদের সফলতা দেখে বুঝতে পারছি আমি আমি নিজে অনেক বেশি সফল। এখানে আত্মাবিশ্বসটাই মূল।

আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?
অবশ্যই আমি একজন সাফল্য নারী উদ্যোক্তা হবো এবং আমার ” এন্জেলা কেটারিং ও টেইলারিং” এবং এন্জেলা হেল্প সোসাইটিকে অনেক দূর পর্যন্ত এগিয়ে নিয়ে যাবো। আমার প্রজেক্টে কর্মীর সংখ্যা আরো বাড়াবে। আমার মতো অনেক পরিবারের নারীরা- পরিবারে পরগাছা হয়ে থাকবে না। ” এন্জেলা হেল্প সোসাইটি ” পক্ষ থেকে সকল এতিম ও সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের ত্রান শিক্ষনীয় উপকরণ দিয়ে সহোযোগিতার হাত আরো প্রশস্ত করা। আমার আয়ের কিছু অংশ আমি সবসময় তাদের পিছনে ব্যায় করি আমার সন্তানদের সাথে নিয়ে। এতে শিশুদের মানুষের প্রতি সহানুভূতি বাড়ে এবং তারা বুঝে মানবতাই ধর্ম। তাতে একটা আত্মতৃপ্তি পাই। ভবিষ্যতে প্রজেক্ট বাড়িয়ে সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের জন্য আরো বেশি কিছু করতে পারি।

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা যদি বলতেন?
চট্টগ্রাম সিটি কলেজ থেকে বি, এস সি পাশ করি।

আপনার চ্যালেন্জ গুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?
সেটা অনেক কঠিন বেপার। সমাজে মেয়েরা প্রতিষ্ঠিত হতে গেলে বাধার কোন বিকল্প নেই। সেখানে আমার মা না বাবার অবদাটা সবচেয়ে বেশি। একটা মেয়ে যখন অনেক রাত করে ঘরে ফিরে তখন এলাকার সবাই আঙ্গুল তুলে কথা বলে, বাসায় বিচার নিয়ে আসে। আমার বাবা কখনো এগুলো কে পাত্তা দিতেন না, প্রশ্রয় দিতেন না কারো বিচার বরংচ আমার পাশে দাড়িয়ে সাহস দিতো প্রচন্ড ভাবে। নারী স্বাধীনতাই বিশ্বাসী ছিলেন তিনি। ‘না’ বলে কোন শব্দ নেই জীবনে তা শিখেছি বাবার কাছ থেকে। আর এটাই আমার সবচেয়ে বড়ো চ্যালেন্জ। আর সত্যি বলতে কি আমি সব পারি, আমাকে পারতে হয়- কারন আমি ‘সিঙ্গেল মাদার ‘ আর সব চেয়ে বড় সান্তনা আমার চ্যালেন্জ কাষ্টমারদের খুব অনুপ্রানিত করে। জীবনের সাথে চ্যালেন্জ করে কাষ্টমাররা যখন যেভাবে বলে সে ভাবেই অর্ডার সম্পূর্ণ করি। মুল্য এমন ভাবে করি যেন ক্রেতাদের পোসায় আমার ও পোসায়। তবে আমি ধাপে ধাপে উঠছি। পরিবেশ প্রতিকূল থেকে অনেক কিছু শিখছি যা আমাকে সমনের কাজ গুলো করতে সহজ ভাবে করতে সাহায্য করে। কেউ ভুল ধরালে ভালো লাগে, কারন সামনের কাজটা আারো ভালো হয়।

আপনার নতুন প্রজেক্ট গুলো কি?
কেটারিং, টেইলারিং, অভিনয় এর পাশাপাশি হ্যান্ডপ্রিন্ট,আচার নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করছি।

বর্তমান কভিড-১৯এ ই-কমার্স?
উত্তরঃ এই অদৃশ্য মামব মানুষের জীবনকে থমকে দিয়েছে। আজ পৃথিবী জিম্মি হয়ে গেছি তার কাছে।অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি আমরা সকলে। সব কাজ থমকে গেছে। সচেতন হয়ে মোকাবেলা করে সামনে এগুতে হবে। কোভিড-১৯ বর্তমানে মানুষের দ্বারে পৌঁছে মানুষকে নতুন ভাবে জীবনকে এগিয়ে নেয়ার পথ দেখাচ্ছে। আমরা যে ভাবে মানসিক বিদ্ধস্ত হয়ে পড়েছি

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team