1. [email protected] : Reporter : Reporter
  2. [email protected] : MJHossain : M J Hossain
  3. [email protected] : isaac10j54517 :
  4. [email protected] : janetbaader69 :
  5. [email protected] : katherinflower :
  6. [email protected] : makaylafriday8 :
  7. [email protected] : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. [email protected] : meredithbriley :
  9. [email protected] : olamcevoy1234 :
  10. [email protected] : roseannaoreily4 :
  11. [email protected] : sebastianstanfor :
  12. [email protected] : tangelamedina :
  13. [email protected] : teenaligar6 :
  14. [email protected] : xugmerri6352 :
  15. [email protected] : yzvhildegarde :
বগুড়ার সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা "স্বপ্নিল রহমান দৃষ্টি" - BBC News 24

বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ১০:৩৪ অপরাহ্ন

সবার দৃষ্টি আকর্ষন:
অ্যাসাইনমেন্ট ২০২১: তৃতীয় সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট এর উত্তর লিখার কাজ চলছে। সর্বশেষ উপডেট পেতে সাথেই থাকুন
ব্রেকিং নিউজ :
কক্সবাজারে ৬ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব’র নিন্দা পশ্চিম বাকলিয়া সমাজ কমিটি ও সচেতন নাগরিক সমাজের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ দরিদ্র কৃষকের পাকা ধান কেটে ঘরে তুলে দেন শরণখোলা উপজেলা ছাত্রলীগ ৬ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে পাহাড় খেকোর মামলা, দুই বাংলা অনলাইন সাংবাদিক ফোরাম কক্সবাজার শাখ’র নিন্দা ও প্রতিবাদ ১৪ আসনে মহীয়সী নারী শিরিন রোকসানা নৌকার মাঝি হতে চান লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এর জন্মদিন ৬ মে বিলাইছড়ি জোন কর্তৃক অবৈধ কাঠ উদ্ধার সড়ক দুর্ঘটনায় মনোতোষ নামে এক যুবকের মৃত্যু মৌলভীবাজারে কওমী মাদ্রাসা দুস্থ শিক্ষক ও ইমামদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার বিতরণ মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসনের কর্মচারীেেদর মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ
বগুড়ার সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা “স্বপ্নিল রহমান দৃষ্টি”

বগুড়ার সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা “স্বপ্নিল রহমান দৃষ্টি”

বিবিসিনিউজ২৪,ডেস্কঃ বগুড়ার মেয়ে “স্বপ্নিল রহমান দৃষ্টি”।যিনি একজন সফল উদ্যোক্তা, সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০১৯ সাল থেকে পড়াশোনার পাশাপাশি চালিয়ে যান জীবন সংগ্রামের একটি অংশ অনলাইন ব্যবসা।তবে থেমে থাকেননি তিনি। দুর্গম পথ এবং ব্যার্থতার গ্লানি উপেক্ষা করে আজ সাফল্যর দ্বারপ্রান্তে ” স্বপ্নিল রহমান দৃষ্টি”।হাটি হাটি পা পা করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে তিনি হয়ে উঠেন বগুড়ার সফল নারী উদ্যোক্তা।

”উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প নিয়ে টেকজুমের এবারের আয়োজন।বগুড়ার মেয়ে ” স্বপ্নিল রহমান দৃষ্টি ” এর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন বিবিসিনিউজ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো-

3rd week assignment 2021

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?
আসসালামু আলাইকুম,নিজের সম্পর্কে বলার মত এখনো তেমন কোন উদাহরণ তৈরি করতে পারিনি।আমার পরিচয় আমি একজন উদ্যোক্তা।বগুড়ার মেয়ে।বাবার চাকরির সুবাদে বেড়ে ওঠা গাজীপুরে।এখন এখানেই স্থায়ী বাসিন্দা।কাজ করছি স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য বিষয়ক পণ্য এবং হস্তশিল্প নিয়ে।একা কাজ আসলে করছিনা।আমার সাথে কাজ করছে একদল পরিশ্রমী,স্বপ্নবাজ মানুষ।দেশের প্রায় হারিয়ে যাওয়া শিল্পকে আবার সকলের সাথে পরিচয় করানোর জন্যই আমার ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা চলছে।সাথে স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য নিয়েও কাছ করছি।একজন মানুষকে কিভাবে সুন্দর লাগবে,ত্বক স্বাস্থ্যোজ্জ্বল থাকবে এবং কোন কারণে যদি ক্ষতি হয় তাহলে রিপেয়ার এর চেষ্টা করি আমার পণ্যের মাধ্যমে।স্বাস্থ্য সকল সুখের মূল,একারণে এ সেক্টরেও কাজ করা শুরু করেছি।একদিনে ত আর পরিবর্তন আসেনা।তবে পরিবর্তনের উদ্দেশ্যেই মাঠে নামা।কাজ করতে ভালবাসি।যতক্ষণ সফলতা না পাব পথ খুঁজে শ্রম,মেধা,প্রচেষ্টা দিয়ে যাই।এই আমি!

 
hostseba.com
 

উদ্যোক্তা আগ্রহ কিভাবে তৈরি হলো?
উদ্যোক্তা আগ্রহ তৈরি হয়েছে ক্লাস ফাইভে থাকতে।পণ্য ছিল কাগজের পাখা!তখন খুব গরম ছিল।খুব কম বাচ্চার সামর্থ্য ছিল চাইনিজ পাখা সাথে রাখার।ত তখন এটা তৈরি করার চিন্তা আসে।আর তৈরি করি।প্রচুর অর্ডার আসে।আর উদ্যোক্তাদের ত সাফল্যেই আগ্রহ দৃঢ় হয়।এরপর একটু বড় হবার পর যেটা ভেবেছি আমার মত এমন অনেকেই আছে যারা অনেক কাজ জানে অথচ সামনে আসতে পারছেনা অথচ খুব উন্নত পণ্য।এরপর এমন মানুষ খুঁজতে শুরু করি আর নিজের সাথে যুক্ত করতে থাকি।কারণ যদি পরিবর্তন আনতেই চাই একা পারবোনা।আমাদের ত কলোনী তে বেড়ে ওঠা।আমার জন্য সহজ ছিল।এরমধ্যে অনলাইন বিজনেস সম্পর্কে জানি।আর যেটা ট্রেডিশনাল বিজনেসের চেয়ে বড় পরিসরে।শিখতে থাকি আর পণ্য প্রকাশ করতে থাকি।এখনো শিখছি।যখন খুব সাড়া পাই আরও আগ্রহ তৈরি হয়।যখন পাইনা কেন পাইনি তার কারণ বের করে পণ্যের ইমপ্রুভমেন্টের পেছনে লেগে পড়িনি।আজ আমি যতটা ই একা আসলে হইনি।আমার পেছনে এতগুলো মানুষ আশা নিয়ে,স্বপ্ন নিয়ে তাকিয়ে আছে যে প্রতিষ্ঠিত উদ্যোক্তা হবার আগ্রহ প্রতি সেকেন্ডে নতুন করে ডানা মেলতে চায়।

আপনি অনলাইন বিজনেসে আইডল  হিসেবে  কাকে দেখেছেন?
নুসরাত আক্তার লোপা আমার অনলাইন বিজনেসের আইডল।হুর নুসরাতের কর্ণধার।অমায়িক একজন নারী।যত ব্যস্ততা থাকুক প্রতিদিন তাকে ফলো করি।নতুন উদ্যোক্তাদের ত বলতে গেলে শিশুর মত ট্রিট করেন।আমি আপুকে নিয়ে যত লিখব কমের নিচে কিছু থাকলে সেটা হবে আসলে!

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে মনে করেন?
কতটুকু সফল এটা আসলে জানিনা।এতবার ব্যর্থতার সম্মুখীন হয়েছি যে সফলতার পরিমাণ তুলনামূলক কম।তবে বর্তমান ট্রেডিশনাল বিজনেসের সাথে অনলাইন বিজনেসের দৌড়ে সফলতার মাপকাঠি তে বেশ সফল আমি।আমার পণ্য আমার কথা অচেনা অজানা অনেকের দ্বারে পৌছাচ্ছে।মানুষ হস্তশিল্পের প্রতি আবার আগ্রহ দেখাচ্ছে।আর হস্তশিল্প নান্দনিকতা বাড়ায় সবকিছুর।আমি যে স্বপ্ন নিয়ে মাঠে নেমেছি তা হয়ত পুরোপুরি পূরণ হয়নি।কারণ সফলতা ভিমবার না যে এক ঘষায় কাজ হবে।আমি যে পর্যন্ত যেতে চাই সে পর্যন্ত যেতে সময়,অর্থ,জনবল প্রয়োজন।আর অনেক চ্যালেন্জ আছে,বাঁধা আছে।চেষ্টা করছি সফল হবার,নিজেকে একটু বেশি পরিশ্রমের জন্য তৈরি করার আর সামনে আরও করব।যতক্ষণ শ্বাস আছে সফলতার জন্য ইন শা আল্লাহ খাটব আমি

আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?
বাংলাদেশের একদম আনাচে কানাচে লুকানো হস্তশিল্পবাসীর পণ্যকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরাই একমাত্র পরিকল্পনা এখন।আমি চাই আমার এই ছোট্ট দেশ পুরো বিশ্ববাসীর মুখে মুখে থাকুক।আর এইজন্য আমার পণ্যকে নিয়ে অনলাইনে পা রাখা।দেশীয় পণ্যের কদর তুলে ধরা।আমরা এখন এত বিদেশী পণ্যের মোহে হারাচ্ছি যে ঐ পণ্যের থেকে লক্ষগুণ উন্নত,টেকসই আর নান্দনিক পণ্য আমাদের আশেপাশেই আছে তা দেখছিনা।আমি এই দৃষ্টিভঙ্গী পরিবর্তনের পরিকল্পনায় আছি।আমার সাথে যারা এ লড়াইয়ে নেমেছেন হয়ত খুব উচুঁ পোস্টে চাকরি করা নারী,আবার কেউ একদম পাক্কা গৃহিনী, আবার এমনও আছে কখনো স্কুল যায়নি।ত এমন অনেক সুপ্ত প্রতিভা অন্বেষণ করে সকলের সামনে প্রকাশ করতে চাই।আর অনেকদিনের চেষ্টা যে অনলাইন ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করা।যাতে অনেকে শিখতে পারে আর উদ্যোগ নিতে পারে নিজে কিছু করার।আগেই বলেছি স্বপ্ন অনেক আর বিশাল।করছি যতটা সম্ভব।

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা যদি বলতেন?
ইংরেজী সাহিত্য নিয়ে পড়াশোনা করছি।এখনো অনার্স শেষ হয়নি।

আপনার চ্যালেঞ্জ গুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?
আমরা নিজেরাই নিজেদের চ্যালেন্জ।আজ আমি যা,কাল আমি তার থেকে উচঁুতে যেন যাই সেটাই আমার চ্যালেন্জ।তবে যদি মোকাবেলার কথা ওঠে বলব প্রতিদিন লড়াই করি।পরিবার ত একদম বিরুদ্ধে।আব্বু বলত,”এত পড়িয়ে মেয়েকে দোকানি বানাব?কাপড়,সাবানের ব্যবসা করবি?”আমার সব নিজের রোজগারে তৈরি করা।পরিবার ত শুরু থেকেই না।অনলাইন বিজনেসে এত কম্পিটিশন।হয়ত আমি পণ্য শো করেছি অন্য কেউ কমে বলে কাস্টমার নিয়ে যাচ্ছে।প্রথম চ্যালেন্জ নিজেকে বিশ্বস্ত করা।আমার প্রথমদিকে এত কটু কথা শুনতে হয়েছে।এসব কে নিজের অগ্রগতির সোপান হিসেবে নিয়েছি।লাইভ করতে পারতাম না,সাজানো গোছানো পেজ একদম নাই ই হয়ে গেল,প্রতারকের কারণে মাঝখানে বড় ধরণের লস আরও অনেক ব্যর্থতার পর যেটা করেছি তা হল থেমে যাইনি।একটা লম্বা সময় শুধু নিজেকে দিয়েছি।নিজেকে তৈরি করেছি।ট্রেনিং করতাম অনেক।কি করে পারফেক্ট পরিচয় করাব পণ্যের তা গবেষণা করেছি।বলতে পারেন শক্তি সঞ্চয় করেছি এবং আগের চেয়েও বেশি শক্তিতে ফিরে এসেছি।মেয়েরা বিজনেসে কেন নামবে এটা ত নিত্যদিনের প্রশ্ন।আমি মনে করি প্রত্যেক ঘরে ঘরে নারী উদ্যোক্তা তৈরি হওয়া বাধ্যতামূলক এখন।স্বপ্ন দেখলে স্বপ্ন পূরণ না হওয়া পর্যন্ত দৌড়ানো বাধ্যতামূলক।এভাবেই আমি মোকাবেলা করছি।

আপনার নতুন প্রোডাক্ট গুলো কি?
নতুন পণ্য হিসেবে হ্যান্ডপেইন্ট এর পণ্য যুক্ত করেছি।আগে ত শুধু শাড়ি কামিজ করা হত হ্যান্ডপেইন্ট এ।এখন আমরা পোশাকের সাথে গয়না,মগ,বেডশিট,কুশন কভার ইত্যাদি যুক্ত করেছি।এমনকি যদি কেউ কাস্টোমাইজ জুতো চান তাও আমরা করছি।এখন ম্যাচিং ই ত সব।আমি বলব অনেক ঘুরে সংগ্রহ করার চেয়ে টিপ টু বটম ম্যাচিং আমরাই করে দেব।এছাড়া স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য সংক্রান্ত পণ্য নিয়ে যেহেতু নতুন কাজ করছি তাই পণ্যও নতুন।ত্বকের যেকোনো সমস্যায় একদম পারফেক্ট পণ্য আমি দিতে পারব।সাথে যত্নের টিপস।এখন প্রচুর ড্যামেজড স্কিনের মানুষ পণ্যের জন্য আসে আর চেষ্টা করি স্কিন অনুযায়ী পণ্য দেবার।

বতর্মানে কভিড ১৯ এ ই – কমার্স?
কোভিড-১৯ এ ই কমার্স বিশ্বের অর্থনীতির সামন্জস্য প্রদানের একমাত্র সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।এত ভয়ংকর সময়ে বাজারে গিয়ে পণ্য ঘেঁটে বাসায় নিয়ে আসা যে কতটা রিস্কি।ই কমার্স এর মাধ্যমে শুধু অর্থনীতি উন্নতি হচ্ছেনা,মানুষের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশও ঘটছে।হাড়ি কড়াই এর মধ্য সীমাবদ্ধ গৃহবধুও তার হাতের কাজ নিয়ে অনলাইনে আসছে।বেকার সমাজের মুক্তি ঘটছে।আমার নিজেরই এখনো গ্রাজুয়েশন হয়নি।সার্টিফিকেট ছাড়া জব ত দেবেনা।কতদিন ঘরে বসে থাকা যায়।মধ্যবিত্ত পরিবারে বেকার সন্তান অনেকটা জীবন্ত অভিশাপের মত।আমার মত অনেকেই কিছু না কিছু নিয়ে অনলাইনে আসছে।উদ্যোক্তা তৈরি হচ্ছে।দেশের শিক্ষিত জনতা ই কমার্সে মেধা মনয়ন করছে।আমি মনে করি করোনার মধ্যে ই কমার্স আরও উন্নত হবে।অনেকদূর এগিয়ে যাবে।কারণ এর হাল উদ্যোক্তারা ধরেছে।

পরিশেষে স্রোতাদের উদ্দেশ্যে কিছু বলেন?
দেশকে এখনো অনেক কিছুই দেয়া বাকী আমাদের।নিজ নিজ জায়গা থেকে মাথা তুলে দাঁড়ান।যারা অনলাইন বিজনেস করছেন অবশ্যই সততা,স্বনির্ভরতা এবং নিষ্ঠার সাথে করবেন।বিশ্বাস অর্জন করাটা শক্ত হলেও খুব দরকার।থেমে থাকবেন না।ধৈর্যের কমতি যেন না হয়।প্রথমেই সফলতা কেউ পায়নি।প্রচুর ট্রেনিং করবেন।আপনার পণ্য নিয়ে স্টাডি করবেন।নিজেকে তৈরি সবথেকে বড় চ্যালেন্জ।আর যারা চাচ্ছেন কিন্তু পারছেন না তাদের বলব সাহস করে নেমে পড়ুন।আমি যদি কাগজের পাখা দিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারি,আপনি ত আমার চেয়ে অনেক উন্নত পণ্য নিয়ে কাজ করতে পারেন।শুরু করুন,যদি কখনো সমস্যায় পড়েন সাথে আছি আমি।ঘরে ঘরে উদ্যোক্তা তৈরি হোক।মেয়েরা রোজগার করুক,স্বাবলম্বী হোক,পরিচয় তৈরি করুক এটাই চাই।আমার জন্য অবশ্যই প্রচুর দোয়া করবেন।আমি যেন আমার স্বপ্নদ্বারে পৌছাতে পারি এবং কোন বাঁধা যেন আমাকে আটকে রাখতে পারে।দেশকে ভালবাসুন।দেশীয় পণ্যের ব্যবহার করুণ।আপনার দেশ উন্নত হলে আপনি এবং আপনার প্রজন্ম সুস্থ সুন্দর জীবনযাপন করবে।আশা করব সকলে পাশে থাকবেন আমার।

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team