1. [email protected] : Reporter : Reporter
  2. [email protected] : MJHossain : M J Hossain
  3. [email protected] : isaac10j54517 :
  4. [email protected] : janetbaader69 :
  5. [email protected] : katherinflower :
  6. [email protected] : makaylafriday8 :
  7. [email protected] : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. [email protected] : meredithbriley :
  9. [email protected] : olamcevoy1234 :
  10. [email protected] : roseannaoreily4 :
  11. [email protected] : sebastianstanfor :
  12. [email protected] : tangelamedina :
  13. [email protected] : teenaligar6 :
  14. [email protected] : xugmerri6352 :
  15. [email protected] : yzvhildegarde :
বরিশালের সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা "মরিয়ম আক্তার" - BBC News 24

রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৯:১৪ পূর্বাহ্ন

সবার দৃষ্টি আকর্ষন:
অ্যাসাইনমেন্ট ২০২১: তৃতীয় সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট এর উত্তর লিখার কাজ চলছে। সর্বশেষ উপডেট পেতে সাথেই থাকুন
বরিশালের সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা “মরিয়ম আক্তার”

বরিশালের সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা “মরিয়ম আক্তার”

বিবিসিনিউজ২৪,ডেস্কঃ বরিশালের মেয়ে “মরিয়ম আক্তার”।যিনি একজন সফল উদ্যোক্তা, সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০২০ সাল থেকে পড়াশোনার পাশাপাশি চালিয়ে যান জীবন সংগ্রামের একটি অংশ অনলাইন ব্যবসা।তবে থেমে থাকেননি তিনি। দুর্গম পথ এবং ব্যার্থতার গ্লানি উপেক্ষা করে আজ সাফল্যর দ্বারপ্রান্তে ” মরিয়ম আক্তার”।হাটি হাটি পা পা করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে তিনি হয়ে উঠেন বরিশালের সফল নারী উদ্যোক্তা।

”উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প নিয়ে টেকজুমের এবারের আয়োজন।বরিশালের মেয়ে “মরিয়ম আক্তার ” এর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন বিবিসিনিউজ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো-

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?
আসসালামু আলাইকুম। আমার নাম মরিয়ম আক্তার। আমাকে সবাই মরিয়ম চিনে। আমি ঢাকার মিরপুর এ থাকি। আমরা দুই বোন।আমি মা বাবার বড়ো মেয়ে।  আমি একজন উদ্যোক্তা। আমার কাজের প্রতি রয়েছে অনেক ভালোবাসা আর সম্মান।আমার একটি পেজ ও গ্রুপ আছে।  নাম DCJ Fashion World by Moreom। আমি থ্রীপিছ,চুড়ি,শাড়ি,জুয়েলারি নিয়ে কাজ করছি।

3rd week assignment 2021

উদ্যোক্তা আগ্রহ কিভাবে তৈরি হলো?
আসলে ছোট থেকে ইচ্ছে ছিলো উকিল হবো। কিন্তু হঠাৎ পারিবারিক কিছু সমস্যার কারণে আমি মার্কেটে জব নেই।  সেখানে পরিচয় হয় টুম্পা আপু যে ঐ দোকানের মালিক ছিলো৷ কিন্তু সে আমাকে তার নিজের ছোট বোনের মতো ভালোবাসতো আর তার ব্যবসার প্রতি ভালোবাসা দেখে আস্তে আস্তে আমার ও আগ্রহ বাড়লো তখন আমি সিদ্ধান্ত নিলাম আমি নিজে কিছু করবো। আর অনলাইন বিজনেস এর প্রতি দিন দিন ভালোবাসাটা বাড়তে থাকলো। আমি প্রথমে চুরি দিয়ে শুরু করি ধীরে ধীরে শাড়ি,থ্রীপিছ নিয়ে কাজ শুরু করি। এভাবে দিন দিন অনলাইন বিজনেস এর প্রতি ভালোবাসা ও সম্মান বাড়তে থাকে আমার।

 
hostseba.com
 

আপনি এই অনলাইন বিজনেসে কাকে আইডল হিসেবে দেখছেন?
আমি এই অনলাইন বিজনেস এ আমার শ্রদ্ধেয় বড়ো আপু টুম্পা ফারজানা আপুকে আইডল হিসেবে দেখছি। কারণ আপু অনেক ঝড় ঝাপটা সামলে ধীরে ধীরে নিজে এগিয়ে গেছে। আমার অনলাইন বিজনেস এর আগ্রহটা আপুকে দেখেই হয়েছিল। তার বিজনেস এর প্রতি ভালোবাসা আমাকে মুগ্ধ করেছিলো। আমি অনলাইন বিজনেস এ আপুকে আইডল মনে করি। ভালো কিছু করতে গেলে অনেক বাধা পেরিয়ে সাফল্য অর্জন করতে হবে এটা আপু আমাকে বুঝিয়েছিলো।

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে আপনি মনে করেন?
আমি মনে করি এখনো আমি কিছুই হয়তো লাভ করতে পারিনি। এখনো আমার অনেকটা পথ হাটা বাকি। মাএ তো হাটতে শিখছি। বিজনেস টা ও ঠিক তেমনি।  মাএ সফলতার পথে  হাটতে শুরু করেছি হয়তো এখনো কিছুই করতে পারিনি। অনলাইন বিজনেসের মাধ্যমে নিজের একটা পরিচয় তৈরি করার জন্য একধাপ এগিয়ে গিয়েছি। নিজের একটা পরিচয় যেটা না মা বাবার নামে আর না স্বামীর নামে। আমাকে সবাই চিনবে আমার কাজের মাধ্যমে একান্ত নিজের একটা পরিচয়ে। নিজের এই উদ্যোক্তা হওয়ার সপ্ন পুরনের সাথে সাথে নিজের একটা পরিচয় ও তৈরি হয়েছে।

আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?
আমার ভবিষ্যত কল্পনা আমি নিজেকে অনলাইন বিজনেস এর যোগ্য করে তুলতে চাই । একজন উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে সঠিক ভাবে তৈরি করতে চাই। আর অনলাইন বিজনেস এ টিকে থাকতে হলে অনেক কিছু শিখতে হবে কারণ শেখার কোন শেষ নাই।  আমি একসাথে বড়ো হতে চাই না আমি ধীরে ধীরে আমার গ্রুপ এবং পেজ কে তৈরি করতে চাই।  আমি আমার এটাকে একটা ব্রান্ড এ পরিচিত করতে চাই যাতে সবাই একনামে চিনবে। আমার সপ্ন অনেক বড়ো আর তার জন্য নিজের সাথে নিজের চ্যালেন্জ নিতে হবে।  কারণ কবি বলেছেন পারিব না এ কথাটি বলিও না আর। একবার না পারিলে দেখ শত বার। তাই আমি যতো বাধা আসুক হার মানবো না।

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা যদি বলতেন?
আমি অর্থনীতি নিয়ে অনার্স অঅধ্যয়নরত আছি।

আপনার চ্যালেন্জ গুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?
পারিব না এ কথাটি বলিও না আর কেনো পারিবে না তাহা ভাবো একবার। অনেক বাধা এসেছে আত্মীয়-স্বজন সবাই বলেছে তুই মেয়ে মানুষ বিজনেস পারবি না লস খাবি। মা বাবাকে বলেছে তোমরা মেয়েকে কিছু বলো। তখন আমি নিজের সাথে নিজের চ্যালেন্জ নিয়েছিলাম যে সবাই কে ভুল প্রমান করে নিজেকে সঠিক প্রমান করতে হবে। আর চ্যালেন্জ ছারা কোন কাজেই সফল হওয়া সম্ভব না।আমরা সাধারণত কেউ যদি বাজি তে লুডু খেলতে বসলে মনে মনে কিন্তু চ্যালেন্জ নেই নিজের সাথে যে আমাকে জিততে হবেই। অনলাইন বিজনেস টাও কিছুটা এরকম হার মানা যাবে না চেস্টা করে যেতেই হবে বাকিটা আল্লাহ ভরষা।আজ আমি যতটুকু সবটা নিজের সাথে নিজের চ্যালেন্জ করে।  অনেক ভয় পেয়েছি হয়তো থেমে যেতে চেয়েছি কিন্তু আমার পরিবার ও হাসবেন্ড আমাকে উৎসাহ দিয়েছে।

আপনার নতুন প্রডাক্ট গুলো কি কি?
আমার নতুন প্রডাক্ট থ্রীপিছ ও প্রিন্টের শাড়ি।

বর্তমানে কভিড১৯ এ ই-কমার্স?

মানুষ যখন লকডাউন এ বাসা থেকে বের হতে পারছিলো না তখন নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কেনার সুযোগ এ ই -কমার্স প্লাটফর্মে। শপিং মল বন্ধ হবার পর অনেকে উদ্যক্তা ভয় পাচ্ছিল কি করবে কিন্তু অনলাইন বিজনেস এর মাধ্যমে তারা কিন্তু পিছিয়ে থাকেনি। বিশেষ করে কভিড১৯ এর সময় এ ই-কমার্স জনসাধারণ এর কাছে খুব গুরুত্ব পেয়েছিল।  কারণ কোভিড১৯ এ ই-কমার্স প্লাটফর্মের মাধ্যমে সবকিছু কেনা যেতো আর তাছারা যেখানে মার্কেটে গেলে একটা জিনিস কিনতে অনেকটা পথ হেটে অনেক দোকান ঘুরে কেনাকাটা করে বাসায় ফিরে ক্লান্ত লাগতো কিন্তু এ ই-কমার্স এর ফলে ঘরে বসেই যেকোনো জিনিস অর্ডার করলে বাসায় এসে তারা পৌছে দেয়। বেশিরভাগ মানুষ কোভিড১৯ এ ই-কমার্স এর প্রতি বেশি গুরুত্ব দিয়েছে। আর এ ই-কমার্স আমাদের মতো উদ্যোক্তাদের কাছে নিজেদের প্রমান করার সুবর্ণ সুযোগ।  কিন্তু আবার কিছু কিছু মানুষ ই কমার্স এর মাধ্যমে ধোঁকাবাজি করছে অর্ডার এর টাকা নিয়ে হয় ক্রেতাকে ব্লক দিচ্ছে আবার কেউ কেউ দেখাচ্ছে এক প্রডাক্ট দিচ্ছে অন্য প্রডাক্ট। যে কারনে অনেকেই ভরষা হারাচ্ছে।

পরিশেষে স্রোতাদের উদ্দেশ্য কিছু বলেন?
এতটুকু বলবো সবার আগে নিজেকে তৈরি করতে হবে সততা দিয়ে। বিজনেস টাকে জীবনের একটা অঙ্গ ভাবতে হবে। আর সবার আগে নিজেকে সবার কাছে বিশ্বাসযোগ্য করে তুলতে হবে। তার জন্য দরকার সময়ের হয়তো প্রথম প্রথম সবাই আমাকে বিশ্বাস করবে না কিন্তু সেই বিশ্বাষ এর জায়গাটা আমাকেই তৈরি করতে হবে। আমি মনে করি যাতে ক্রেতারা চোখ বন্ধ করে আমার প্রোডাক্ট নিতে পারে। আর অনলাইন বিজনেস এ সবসময় ভালো প্রডাক্ট দিতে হবে কেননা তারা কিন্তু হাতে ধরে দেখে নিচ্ছে না তারা শুধু ছবি অথবা লাইভ এর উপর ভিত্তি করে নিচ্ছে একবার খারাপ কিছু পেলে পরবর্তীতে তার বিশ্বাস টা ভেঙ্গে যাবে সে আর নিতে চাইবে না আর ভালো কিছু পেলে সে আমার থেকে চোখ বন্ধ করে নিবে। তখন সে বলবে বিশ্বাসের যায়গা মানে DCJ Fashion World By Moreom.

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team