1. [email protected] : Reporter : Reporter
  2. [email protected] : MJHossain : M J Hossain
  3. [email protected] : isaac10j54517 :
  4. [email protected] : janetbaader69 :
  5. [email protected] : katherinflower :
  6. [email protected] : makaylafriday8 :
  7. [email protected] : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. [email protected] : meredithbriley :
  9. [email protected] : olamcevoy1234 :
  10. [email protected] : roseannaoreily4 :
  11. [email protected] : sebastianstanfor :
  12. [email protected] : tangelamedina :
  13. [email protected] : teenaligar6 :
  14. [email protected] : xugmerri6352 :
  15. [email protected] : yzvhildegarde :
কেরানীগঞ্জের সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা "পান্না ফাতেমা টুম্পা" - BBC News 24

রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন

সবার দৃষ্টি আকর্ষন:
অ্যাসাইনমেন্ট ২০২১: তৃতীয় সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট এর উত্তর লিখার কাজ চলছে। সর্বশেষ উপডেট পেতে সাথেই থাকুন
কেরানীগঞ্জের সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা “পান্না ফাতেমা টুম্পা”

কেরানীগঞ্জের সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা “পান্না ফাতেমা টুম্পা”

বিবিসিনিউজ২৪,ডেস্কঃ কেরানীগঞ্জের মেয়ে “পান্না ফাতেমা টুম্পা “।যিনি একজন সফল উদ্যোক্তা, সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০১৯ সাল থেকে পড়াশোনার পাশাপাশি চালিয়ে যান জীবন সংগ্রামের একটি অংশ অনলাইন ব্যবসা।তবে থেমে থাকেননি তিনি। দুর্গম পথ এবং ব্যার্থতার গ্লানি উপেক্ষা করে আজ সাফল্যর দ্বারপ্রান্তে ” পান্না ফাতেমা টুম্পা”।হাটি হাটি পা পা করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে তিনি হয়ে উঠেন কেরানীগঞ্জের সফল নারী উদ্যোক্তা।

”উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প নিয়ে টেকজুমের এবারের আয়োজন।কেরানীগঞ্জের মেয়ে “পান্না ফাতেমা টুম্পা ” এর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন বিবিসিনিউজ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো-

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?
আসসালামু আলাইকুম,আমার নাম পান্না ফাতেমা টুম্পা। বাসায় এবং বন্ধুমহলে এমন কি ফেসবুকেও টুম্পা নামেই আমি বেশি পরিচিত। আমি কেরানীগঞ্জে থাকি। আমরা ২ বোন আর ১ ভাই। আমি আমার বাবা মায়ের ২য় সন্তান। আমি একজন শিক্ষিকা, একজন উদ্যোক্তা এই দুইটা বিষয়ের প্রতি রয়েছে অনেক বেশি ভালোবাসা আর সম্মান।আমার একটি পেজ এবং একটি গ্রুপ আছে। নাম সেবা অনলাইন শপ। আমি ন্যাচারাল বিউটি প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করছি। আসলে বিউটি প্রোডাক্ট বললে ভুল হবে মানুষের সমস্যার সমাধান নিয়ে কাজ নিয়ে করছি।

3rd week assignment 2021

 
hostseba.com
 

উদ্যোক্তা আগ্রহ কিভাবে তৈরি হলো?
আমার ছোটবেলা থেকে স্বপ্ন ছিলো আমি নিজে কিছু করবো সবাই আমাকে আমার কাজের জন্য চিনবে। আমার বাবা যখন রাস্তা হেটে যাবে তখন সবাই বলবে এটা টুম্পার বাবা।আমার নামে সবাই চিনবে আমার বাবাকে, আমার বাবা ও একজন উদ্যোক্তা৷ মানে আমি বাবসায়ীক পরিবারের সন্তান। নিজের কিছু করার মধ্যে যে শান্তি , যে আনন্দ তার তুলনা কোনো কিছুর সাথে হয় না। অনলাইনে কাজ করার জন্য অনুপ্রানিত হওয়ার আরেকটি অন্যতম কারণ হলো আমি আমার স্বপ্ন নিয়ে বেঁচে থাকতে চাই। আর দশটা মেয়ের মতো আমি চাই না আমার স্বপ্ন বিয়ে হওয়ার সাথে সাথে শেষ হয়ে যাক৷ অনলাইন বিজনেস টা এমন একটা প্লাটফর্ম আমি সব কিছু ঠিক রেখে নিজের বিজনেস ঘর থেকে বসে করতে পারবো। আমাকে ঘরের বাইরে যেতে হবে না। কোন কিছু বাদ দিয়ে এটাকে করতে হবে না, অনেক মেয়েরা বিয়ের আগে চাকরি করে বিয়ের পরে ও করে কিন্তু বাচ্চা হলেই আর চাকরি করা সম্ভব হয় না। স্বপ্নকে বাদ দিয়ে মেনে নিতে হয় বাস্তবতাকে। কিন্তু অনলাইনে বিজনেস এ ক্ষেত্রে এমন কিছু হওয়ার সুযোগ নেই। কারণ আমার সব কাজ হবে মোবাইল বা ল্যাপটপ এ৷ নিজের একটা সুনিশ্চিত ক্যারিয়ারের কথা চিন্তা করেই এ পদক্ষেপ নেওয়া।

আপনি এই অনলাইন বিজনেসে কাকে আইডল হিসেবে দেখছেন?
আমি অনলাইন বিজনেস এ শ্রদেয় রাজীব আহমেদ স্যারকে আইডল হিসাবে দেখছি। তিনি এমন একজন মানুষ যাকে দেখে অনেক কিছু শিখার আছে৷ তার একটা কথায় আমার জীবনটাকে পরিবর্তন করে দিয়েছে৷ ব্যর্থ হয়েছো আবার চেষ্টা করো , আবার ব্যর্থ হয়েছো আবার চেষ্টা করো , কিন্তু কখনো হাল ছেড়ে দিও না।চেষ্টা করতে থাকলে সফলতা ইনশাআল্লাহ আসবে শুধু সময়ের ব্যাপার।কেউ যদি পারে তাহলে আমিও পারবো, কেউ যদি না পারে তাহলেও ইনশাআল্লাহ আমি পারবো।জীবনে সত্যি সফল হতে হলে একজন মেন্টর দরকার যার দেখানো পথে হাটলে এক পা দু পা করে এগিয়ে যাবো সফলতার মঞ্চের দিকে।

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে মনে করেন?
সফলতার সংজ্ঞা টা আমার কাছে একটু ভিন্ন ।
একটা কবিতা আমরা ছোটবেলায় সবাই পড়েছি
আপনাকে যে বড় বলে বড় সে নয়, লোকে যারে বড় বলে বড় সে হয়, বড় হওয়া সংসারেতে কঠিন ব্যাপার।সংসারে সে বড় হয়,বড় গুন যার।তার পর ও যদি বলতে হয় নিজেকে কতোটুকু সফল মনে হয় তাহলে বলবো সফলতার পথে হাটতে শুরু করেছি। সফলতার পথে আমার এই ছোট্ট পা গুলো অনেক বড় ভূমিকা পালন করবে৷ শূন্য থেকে শুরু করে আজ আমি এখানে।নিজের একটা জায়গা তৈরি করার জন্য একধাপ এগিয়ে গিয়েছি মনে হচ্ছে,নিজের মনের লুকায়িত স্বপ্ন পূরণ করতে পেরেছি উদ্যোক্তা হওয়ার মাধ্যমে। এবারের বই মেলায় ১০০ জন সাহসী নারী উদ্যোক্তার সাথে আমার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প প্রকাশিত হবে। এটা আমার জন্য বিশাল বড় পাওয়া। বইটির নাম হচ্ছে “আমাদের গল্প”। স্বপ্ন আমার সত্যি হওয়ার পথে।

আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?
নিজেকে একজন সফল উদ্যোক্তা হিসাবে তৈরি করা৷ আমি নিজেকে অনলাইন বিজনেসের জন্য যোগ্য করে গড়ে তুলতে চাই। অনলাইন বিজনেস এ টিকে থাকটাই সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ। নিজেকে এগিয়ে রাখতে হলে আমাকে প্রতিনিয়ত শিখার মন মানসিকতা তৈরি করতে হবে । সেবা অনলাইন শপ গ্রুপটা এমনভাবে তৈরি করবো যাতে অনলাইন বিজনেস শিখার জন্য মানুষ নিজে থেকে গ্রুপে এড হবে,নিজেকে তৈরি করার জন্য সময় দিবো। এটা কেনো সেল গ্রুপ হবেনা। এটা হবে নিজেকে ব্র্যান্ড হিসাবে তৈরি করার গ্রুপ। আর একটা পরিকল্পনা আছে যেহেতু আমি বিউটি প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করছি তাই এ সম্পর্কে এতো কন্টেন্ট থাকব যাতে সবাই স্কিন কেয়ার প্রোডাক্ট কিনার আগে এ সম্পর্কে জানার জন্য গ্রুপে এসে সার্চ দিবে।


আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা যদি বলতেন?
আমার একাউন্টটিং ডিপার্টমেন্ট থেকে বিবিএ কমপ্লিট ।

আপনার চ্যালেঞ্জ গুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?
আমার চ্যালেঞ্জ না থাকলে জীবন অর্থহীন। আমরা যদি আমাদের হার্ডবিড এর দিকে খেয়াল করে দেখি৷ একটা উপরে দিকে আরেকটা একদম নিচের দিকে। এটা যদি একদম সমান হয়ে যায় তার মানে আমরা মারা গিয়েছি। একটু মিলিয়ে দেখবেন৷ আমি আমার জীবনের সমস্যাগুলোকে নতুন সম্ভাবনা হিসাবে নিয়েছি। সমস্যা থেকেই সমাধান খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছি সবসময়। ভয় পেয়েছি কিন্তু কখনও থেমে যাই নি। হাল ছেড়ে দেইনি। তাই যেটা অনেকের কাছে অসম্ভব ছিলো সেটাই করতে পেরেছি।’ সম্ভব না ‘ এর মধ্যে আছে নতুন কিছু করার সম্ভনবা।

আপনার নতুন প্রোডাক্ট গুলো কি কি?
শ্যাম্পু,সাবান,ক্লিনজার, ন্যাচারাল ক্রিম, মেকাপ রিমুভার।

বর্তমানে কভিড১৯ এ ই-কমার্স?
বতমানে কভিড ১৯ এ ই কমার্সের জন্য রযেছে বিশাল বড় সম্ভাবনা। এই সময়ে অনলাইন বিজনেস টা সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে সবার কাছে । ঘরে বসেই জামা কাপড়, খাবার, গয়না,শাড়ি হতে শুরু সব কিছুই পাওয়া সহজ উঠেছে সবার জন্য। ঘরে বসেই নিজের পছন্দনীয়,প্রোডাক্টের ছবি দেখে বা লাইভ দেখে প্রোডাক্টের অর্ডার করা সম্ভব হচ্ছে। মানুষ যখন লকডাউনে বাসা থেকে বের হতে পারছিলো না তখন নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস থেকে শুরু সব কিছু কেনাকাটা সুযোগ ছিল এ ই কমার্স প্লাটফমে।জীবন যাএা যেখানে থমকে যাচ্ছিলো তখন ই কমার্স নতুন এক সম্ভাবনা ময় জীবন তুলে ধরেছে আমার মতো হাজার উদ্যোক্তার জন্য। কিন্তু অসাধু কিছু ব্যবসায়ীর জন্য মানুষ অনলাইনের উপর বিশ্বাস হারিয়ে ফেলতে শুরু করেছে৷। যেমন পন্যের ছবি দিচ্ছে এক রকম হাতে পাওয়ার পর অন্য রকম।একই পন্যের দাম অনেক পেজ এ অনেক বেশি , অনেক পেজ এ অনেক কম। পন্য আমদানি করার পরিমানের উপর নির্ভর করে দাম কম বেশি হতে পারে কিন্তু তার মানে এই না এক ক্রিম আমার কাছে ৬০০ টাকা অন্য পেজ এ ১৫০০ টাকা। এর ফলে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের বিড়াম্ভনা।দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা ব্যতিত অনলাইন বিজনেসে সফলতা বাস্তবে সম্ভব নয়।অনলাইন বিজনেসে অভিজ্ঞ হতে হলে অবশ্যই ই কমার্স সম্পর্কে জানতে হবে৷ নতুন নতুন বিষয় গুলো শিখার চেষ্টা থাকতে হবে। অনেক কিছু জানি না এটা সমস্যা না, নিজের মধ্য থেকে জানার আগ্রহ তৈরি করতে হবে। নিজেকে একজন বিশস্ত উদ্যোক্তা হিসাবে গড়ে তুলতে হবে।

পরিশেষে স্রোতাদের উদ্দ্যেশ্যে কিছু বলুন?
সবার জন্য একটা কথাই বলবো আপনি যদি কোনো কিছু বিক্রি করতে চান তাহলে সবার আগে আপনাকে বিক্রি করতে হবে। সবার কাছে হইতো অবাক লাগছে কি বলছে টুম্পা আপু নিজেকে সেল করতে হবে৷ হ্যা ঠিক শুনেছেন নিজেকে সেল করতে হবে। নিজেকে সেল বলতে নিজেকে সবার সামনে তুলে ধরতে হবে , নিজের পারসোনাল ব্র্যান্ডিং তৈরি করতে হবে। বিশ্বাস অর্জন করতে হবে। আপনার প্রোডাক্ট যে অরজিনাল, ভালো ব্যান্ড নিয়ে আপনি কাজ করছেন সবার সামনে তা উপস্হাপন করতে পারতে হবে। মনে রাখতে হবে টেডিশোনাল বিজনেস এ মতো অনলাইন বিজনেস না । এখানে ক্রেতা প্রোডাক্ট হাতে না ধরে, শুধু মাএ আপনার আমার মুখের কথার উপর বিশ্বাস করে,ছবি দেখে প্রোডাক্ট অর্ডার করছে। অনেক ক্ষেএে বিশ্বাস করে আগে টাকা পেমেন্ট করছে তাহলে এখন একটু ভেবে দেখুন কতটুকু সৎ থেকে আমাদের কাজ করতে হবে। প্রোডাক্টের আগে নিজের একটা গ্রহন যোগ্যতা তৈরি হবে। যাতে মানুষ আপনার নাম শুনলেই বা ছবি দেখলেই বলে ও টুম্পা আপু। আপুকে চিনি তিনি যেমন ভালো তারপর প্রোডাক্টগুলো তেমন ভালো। আপুকে বিশ্বাস করে ঠকিনি। অনলাইনে টুম্পা আপুর সেবা অনলাইন শপ পেজ মানেই ভরসার জায়গা।
ধন্যবাদ সবাইকে।

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team