1. [email protected] : Reporter : Reporter
  2. [email protected] : MJHossain : M J Hossain
  3. [email protected] : isaac10j54517 :
  4. [email protected] : janetbaader69 :
  5. [email protected] : katherinflower :
  6. [email protected] : makaylafriday8 :
  7. [email protected] : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. [email protected] : meredithbriley :
  9. [email protected] : Muhibullah Chy : Muhibullah Chy
  10. [email protected] : olamcevoy1234 :
  11. [email protected] : roseannaoreily4 :
  12. [email protected] : sebastianstanfor :
  13. [email protected] : tangelamedina :
  14. [email protected] : teenaligar6 :
  15. [email protected] : xugmerri6352 :
  16. [email protected] : yzvhildegarde :

মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:৪৩ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
নবনির্বাচিত কাউন্সিলর লায়ন বি এম আতিকুর রহমান কে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান সাহাদাৎ হোসেন শাহিন বাহুবলে স্নানঘাট ইউনিয়নে ছিন্নমূল অসহায় মানুষের মাঝে শীত বস্র বিতরণ বাহুবলে ৫ টি ইটভাটাকে ১ লাখ ১০ হাজার টাকা অর্থ দন্ড কোটচাঁদপুরে দলীয় সিধান্তে আ.লীগ থেকে দুই মেয়র প্রার্থী বহিস্কার কালীগঞ্জে হলুদে ভেজাল,লাখ টাকা জরিমানা হাজারও দুর্নীতির অভিযোগ,তোয়াক্কা করছে না তসিলদার পান্না নগরীর গন্ডার সোহেল আতঙ্কে আমানতগঞ্জের মানুষ নাটোরে ৪ দফা দাবি বাস্তবায়নের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ,বিক্ষোভ ও সমাবেশ নাটোরে গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে ইটভাটা মালিকদের মতবিনিময় সভা নাটোরে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে নষ্ট চাল সরবরাহ করা হচ্ছে দরিদ্র অসহায় মানুষদের
হালুয়াঘাট স্থল বন্দর উন্নয়ন কাজে গরমিল

হালুয়াঘাট স্থল বন্দর উন্নয়ন কাজে গরমিল

Print Friendly, PDF & Email

দেওয়ান নাঈম,হালুয়াঘাট প্রতিনিধিঃ গারো পাহাড়ের পাদদেশে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সীমান্তঘেঁষা উপজেলা হালুয়াঘাট। এই উপজেলায় রয়েছে দু’টি স্থলবন্দর। একটি গোবরাকুড়া এবং অন্যটি কড়ইতলী। ২০১২ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর তৎকালীন নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট প্রমোদ মানকিন গোবরাকুড়া ও কড়ইতলী বন্দরকে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর হিসেবে আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করেন। কাঙ্খিত এ দু’টি স্থলবন্দরকে একীভূত করে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দরে উন্নীত করে গেজেট প্রকাশের পর সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে একটু দেরিতে হলেও উন্নয়ন কাজ শুরু হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, এ স্থল বন্দরের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ, বিজিবি ক্যাম্প, পুলিশ স্টেশন, কাস্টমস ভবন, ওয়্যার হাউজ, ব্যাংক এবং বহির্গমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের ল্যান্ডি পারমিট ভিসা অফিস স্থাপনের কাজসহ সর্বপরি বন্দর উন্নয়নের কাজ চলমান।

মেসার্স মাহাবুব এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স আলম বিল্ডার্স এবং ডিজে বাংলা নামক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো দুটি স্থলবন্দর উন্নয়নের কাজ পায়। কিন্তু সরেজমিনে দেখা যায় সংশ্লিষ্ট কাজের নেই কোন কাজের সংক্ষিপ্ত বিবরণীসহ সাইনবোর্ড, বন্দর কর্তৃপক্ষের নেই সঠিক তদারকি আর ইয়ার্ড ভরাট করতে বালুর পরিবর্তে দেওয়া হচ্ছে শতশত ট্রাক মাটি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বন্দর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সাইট ইঞ্জিনিয়ার পরিচয়দানকারী জনৈক মুর্শেদ আলম জানান, ইয়াার্ড ভরাট করতে বালু ব্যবহারের আদেশ থাকলেও ভুলবশত কিছু মাটি চলে এসেছে। ভবিষ্যতে এমনটি আর হবে না। আর কাজের সংক্ষিপ্ত বিবরণীসহ সাইনবোর্ড এখনো লাগানো হয়নি।এ বিষয়ে বন্দর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী প্রকৌশলী ধীরেন্দ্রনাথ সরকারের সাথে কথা বলার জন্য মুঠোফোন নাম্বার চাইলে তিনি দিতে অস্বীকার করেন।
একটি সূত্র থেকে জানা যায়, স্থলবন্দরটির জমি অধিগ্রহণ ও উন্নয়ন কাজের জন্য সরকার ৬৭ কোটি ২২ লাখ টাকা বরাদ্ধ করে। জানুয়ারি ২০১৮ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ সালের মধ্যে এই উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও নিদিষ্ট সময়ের মধ্যে তা শেষ হয়নি। বর্তমানে সমগ্র উন্নয়ন কাজের মাত্র ৫০ ভাগ শেষ হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রেজাউল করিম বলেন, স্থলবন্দর দুটির উন্নয়ন প্রক্রিয়া চলমান। তবে দরপত্রের আদেশ অনুযায়ী কাজ না হলে উর্দ্ধতন কতৃপক্ষকে অবহিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আপনার মতামত দিন

Tayyaba Rent Car BBC News Ads

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team