1. [email protected] : Reporter : Reporter
  2. [email protected] : MJHossain : M J Hossain
  3. [email protected] : isaac10j54517 :
  4. [email protected] : janetbaader69 :
  5. [email protected] : katherinflower :
  6. [email protected] : makaylafriday8 :
  7. [email protected] : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. [email protected] : meredithbriley :
  9. [email protected] : Muhibullah Chy : Muhibullah Chy
  10. [email protected] : olamcevoy1234 :
  11. [email protected] : roseannaoreily4 :
  12. [email protected] : sebastianstanfor :
  13. [email protected] : tangelamedina :
  14. [email protected] : teenaligar6 :
  15. [email protected] : xugmerri6352 :
  16. [email protected] : yzvhildegarde :

শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ১১:৪৩ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
ফুলবাড়ীতে একটি বিদ্যালয়ে ১২টি মৌমাছির বাসা, আতংকে রয়েছে শিক্ষার্থীরা

ফুলবাড়ীতে একটি বিদ্যালয়ে ১২টি মৌমাছির বাসা, আতংকে রয়েছে শিক্ষার্থীরা

Print Friendly, PDF & Email

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ মাথার উপর কয়েক হাজার মৌমাছি নিয়ে চলছে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা । ক্লাসের সময় ঢুকছে নিয়মিত কক্ষের ভিতরে মৌমাছি গুলো । ঘোরাঘুরি করছে শিক্ষার্থীদের সাথে। খেলাধুলার সময়ও ক্ষতি করছে না মৌমাছি গুলো।

এ যেন এক বিচিত্র দৃশ্য। দোতলা ভবনের সামনে ওয়ালে বেধেঁছে বাসা। সেখানে ১০ ফিট পর পর রয়েছে মৌমাছির ১২টি বাসা । এ মৌমাছি গুলো বাসার দৃশ্য রয়েছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা বহুমূখী উচ্চবিদ্যালয়ে। তবে আতংক রয়েছে কমলমতি শিক্ষার্থীরা।

ওই এলাকার ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যেক্ততা হাবিবুর রহমান বুলু জানান ছাত্রছাত্রীরা যখন মাঠে খেলা করে, তখন দেখা যায় মাঠের ভেতর দিয়ে ছোটাছুটি করছে মৌমাছি। শিক্ষার্থীদের প্রথম ভয় পেলেও এখন আর ভয় পায় না । মনে হয় শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী ও মৌমাছি যেন একই পরিবারের সদস্যদের মতো অবস্থান করছে সেখানে। বিদ্যালয়ের পুরো ভবনটির চারদিকে বিপুল পরিমাণ মৌমাছির বাসা ছিল এখন কমে ১২টি হয়েছে। আগে অনেক মৌমাছির বাসা ছিল । মধূ সংগ্রহ ব্যক্তিদের উৎপাতের কারনে অন্যত্র চলে গেছে মৌমাছি। বিদ্যালয়ের সামনের রাস্তার পথচারীরা কিছু সময়ের জন্য হলেও বিদ্যালয়ের দিকে তাকিয়ে মৌচাকের বাসাগুলো দেখেন। মৌচাকগুলো বিদ্যালয়টির সৌন্দর্য অনেকটা বাড়িয়ে দিয়েছে।
বৃহস্পতিবার পঞ্চম শ্রেনীর শিক্ষার্থী রায়হান বলেন বিদ্যালয়ের চারদিকে যেভাবে মৌচাক বাসা বেঁধেছে, তা দূর থেকে দেখলে ভয় লাগে। অথচ একটা মৌমাছিও আমাদের কাউকে কোনো দিন কামড় দেয়নি। মৌমাছিগুলো আমাদের বন্ধু হয়ে গেছে।
সপ্তম শ্রেনীর শিক্ষার্থী সুমি খাতুন জানান আমরা যখন ক্লাসে বসে লেখাপড়া করি, কিছু মৌমাছি ক্লাসের ভেতর দিয়ে ঘোরাঘুরি করে। দেখলে মনে হবে মৌমাছিগুলো আমাদের সঙ্গে পড়াশোনা করছে। তার পরে মৌমাছি বাসার মধ্য দিয়ে আমরা প্রতিদিন বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া করছি।
ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আমিনুল ইসলাম জানান বিদ্যালয় চলাকালীন কেউ মৌমাছিকে আঘাত করে না, যার ফলে আমাদের কারও কোনো ক্ষতি করে না। মৌমাছি ওদের মতো থাকে, আর আমরা আমাদের মতো করে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা করাই।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শরীফ উদ্দিন মিয়া জানান প্রতিবছর সরিষা মৌসুমে দোতলা ভবনটির চারপাশে প্রচুর মৌমাছি চাক তৈরি করেছে। এলাকায় অনেক কাঁচা-পাকা বাড়ি, গাছপালা রয়েছে, যেখানে তেমন কোনো মৌচাক নেই। অথচ আমাদের বিদ্যালয়ের চারদিকে প্রচুর মৌচাক। এখন পযর্ন্ত কোন কোন ক্ষতি করেনি। তবে কিছু দুষ্ট মানুষ আছে যারা রাতের আঁধারে মধু কেটে নিয়ে যায়।

আপনার মতামত দিন

 
hostseba.com
 
Tayyaba Rent Car BBC News Ads

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team