1. seopay01833@gmail.com : Reporter : Reporter
  2. fhbadshah95@gmail.com : MJHossain : M J Hossain
  3. g21@exnik.com : isaac10j54517 :
  4. Janet-Baader96@picklez.org : janetbaader69 :
  5. tristan@miki8.xyz : katherinflower :
  6. makaylafriday74@any.intained.com : makaylafriday8 :
  7. mdrakibhasan752@gmail.com : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. g39@exnik.com : meredithbriley :
  9. muhibbbc1@gmail.com : Muhibullah Chy : Muhibullah Chy
  10. olamcevoy@baby.discopied.com : olamcevoy1234 :
  11. g2@exnik.com : roseannaoreily4 :
  12. b13@exnik.com : sebastianstanfor :
  13. g29@exnik.com : tangelamedina :
  14. g24@exnik.com : teenaligar6 :
  15. b15@exnik.com : xugmerri6352 :
  16. g16@exnik.com : yzvhildegarde :

শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ১১:০৪ অপরাহ্ন

সবার দৃষ্টি আকর্ষন:
বিবিসিনিউজ২৪ডটকমডটবিডি এর পেইজে লাইক করে মুহূর্তেই পেয়ে যান আমাদের সকল সংবাদ
ব্রেকিং নিউজ :
পাহাড়তলী আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের কাউন্সিল সম্পন্ন শারদীয় দূর্গাপূজা উপলক্ষে মানিকছড়িবাসীকে শুভেচ্ছা জানালেন যুবলীগ নেতা সামু চাঁপাইনবাবগঞ্জ কানসাট ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ও তার সহযোগি আটক কারাগারে প্রেরণ জামালপুর শহরে ট্রেনে কাটা পরে ১ জনের মৃত্যু রাঙামাটি’র ঘাগড়া’য় ১২০ লিঃ মদ সহ সিএনজি অটোরিকশা আটক নড়াইলে অবসরপ্রাপ্ত কলেজ শিক্ষককে গলা কেটে হত্যা রামগড়ে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজল চৌধুরীর শেষকৃত্য সম্পন্ন রামগড়ে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা শারদীয় দূ্র্গাপুজা উপলক্ষে হরিজন সম্প্রদায়ের শিশুদের মাঝে কুড়িগ্রাম জেলা পুলিশের উপহার প্রদান গোবিন্দগঞ্জে গ্রেফতারী পরোয়ানার ৯ আসামী আটক
চট্টগ্রামে কালুরঘাট সেতু নিয়ে আবারও জটিলতা

চট্টগ্রামে কালুরঘাট সেতু নিয়ে আবারও জটিলতা

Print Friendly, PDF & Email

বোয়ালখালী প্রতিনিধি( চট্টগ্রাম) মোহাম্মদ আলী (রিপন)ঃ কালুরঘাট সেতু নির্মাণ প্রকল্প ঝুলে গেছে। দফায় দফায় বৈঠক ও আলোচনা হলেও সৃষ্ট সংকটের কোনো সুরাহা হচ্ছে না। নদীর উপর সেতুর উচ্চতা নিয়ে দেখা দেয়া জটিলতায় এই সেতু নির্মাণ আদৌ সম্ভব হবে কিনা তা নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে। সেতুর অর্থ সংস্থান থেকে প্রায় সবকিছু গুছিয়ে আনা হলেও বিআইডব্লিউটিএর আপত্তির মুখে বহুল প্রত্যাশার এই সেতুর ভবিষ্যত অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। নেভিগেশন চ্যানেল ঠিকঠাক রাখার জন্য বিআইডব্লিউটিএ সেতুর যেই উচ্চতা রাখার প্রস্তাব দিয়েছে তাতে কালুরঘাটে স্বপ্নের সেতু অধরা থেকে যাবে বলে আশংকা সৃষ্টি হয়েছে।

চট্টগ্রাম রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় বার্মা ফ্রন্টের সেনা চলাচলের জন্য কর্ণফুলী নদীর উপর সেতু নির্মাণের তীব্র প্রয়োজন দেখা দেয়। পরবর্তীতে ব্রিটিশ সরকার ১৯৩০ সালে ব্রুনিক এন্ড কোম্পানির ব্রিজ কোম্পানি ব্রিজ বিল্ডার্স–হাওড়া নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সেতুটি নির্মাণ করে। শুধুমাত্র ট্রেন চলাচলের জন্য ৬৩৮ দশমিক ৫ মিটার দীর্ঘ সেতুটি নির্মাণ করা হয়। এই সেতু নির্মাণে নদীতে ছয়টি ব্রিক পিলার, ১২টি স্টিল পিলার, দুটি এ্যাবটমেন্ট ও ১৯টি স্প্যান দেয়া হয়। ১৯৩০ সালের ৪ জুন সেতুটি উদ্বোধন করা হয়। এটি মূলত রেলসেতু হলেও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বার্মা ফ্রন্টের সৈন্যদের ব্যবহৃত মোটরযান ও যুদ্ধযান চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৫৮ সালে এসে সেতুটিতে সব ধরনের যান চলাচল উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। দীর্ঘদিনের ব্যবহারের পর ২০০১ সালে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ সেতুটিকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে। তারপরেও একাধিকবার সংস্কারের মাধ্যমে জোড়াতালি দিয়ে গত ১৯ বছর ধরে সেতুটিতে ট্রেন ও যান চলাচল করছে। এছাড়া একমুখী যান চলাচল করায় সাধারণ মানুষকে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে প্রতিদিন। রেল কাম সড়কসেতু হওয়া রেল চলাচলের সময়ও সেতুটি পুরোপুরি বন্ধ রাখতে হয়। এতে বোয়ালখালী শহরের কাছের উপজেলা হলেও এখানকার মানুষকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সিগন্যালে আটকা পড়ে থাকতে হয়।

অবশেষে বোয়ালখালীসহ বিস্তৃত এলাকার মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষ ২০১৭ সালের ২১ সেপ্টেম্বর কালুরঘাট কর্ণফুলী নদীর ওপর রেল কাম সড়ক সেতু নির্মাণের একটি ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট প্রপোজাল (ডিপিপি) তৈরি করে। প্রকল্পটি যাচাই–বাছাই শেষে কয়েক দফা পুনর্গঠন করা হয়। উপস্থাপনগত ত্রুটির কারণে প্রকল্পটি একনেক থেকেও ফেরত পাঠানো হয়। পরবর্তীতে বহু কাঠখড় পুড়িয়ে এই সেতুর একটি চূড়ান্ত ডিজাইন দাঁড় করানো হয়। ঢাকা–চট্টগ্রাম–কঙবাজার রেল প্রজেক্ট প্রিপারেটরি ফ্যাসিলিটি প্রকল্পের অধীনে কর্ণফুলী নদীর ওপর সেতু নির্মাণের প্রকল্পটি অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এ প্রকল্পের অধীনে কালুরঘাটে অবস্থিত পুরনো রেল সেতুর পাশে নতুন ‘রেলওয়ে কাম রোড সেতু’ নির্মাণের নকশা প্রণয়ন করা হয়। এই ব্যাপারে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত দ্যা ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট কো–অপারেশন ফান্ড (ইডিসিএফ) এর সাথে রেলওয়ের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। শূন্য দশমিক ৭২ কিলোমিটার লম্বা সেতুটির উপর দুটি রেলসড়ক দিয়ে ডিজাইন করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে কোরিয়ার অর্থায়নকারী প্রতিষ্ঠানের আপত্তির কারণে একটি রেল সড়ক অন্তর্ভুক্ত করে নতুন ডিজাইন তৈরি করা হয়। প্রস্তাবিত নকশায় সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে সেতুর উচ্চতা ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ৬২ মিটার বা প্রায় ২৫ ফুট। কিন্তু এই উচ্চতার ব্যাপারে আপত্তি জানায় বিআইডব্লিউটিএ। তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়, সেতুর যেই উচ্চতার কথা বলা হয়েছে তাতে নেভিগেশন চ্যানেল হুমকির মুখে পড়বে। সেতুর উচ্চতা ১২ দশমিক ২ মিটার বা ৪০ ফুট করার শর্ত দেয় বিআইডব্লিউটিএ। এই আপত্তিতেই মহাসংকটে পড়ে কালুরঘাট সেতু।

রেলওয়ের একাধিক কর্মকর্তা গতকাল জানান, বিষয়টি নিয়ে প্রকল্পের অর্থায়নকারী প্রতিষ্ঠান দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত দ্যা ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট কো–অপারেশন ফান্ড (ইডিসিএফ) থেকেও সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করতে বলা হয়। ইতোমধ্যে রেলওয়ে থেকে বিআইডব্লিউটিএর সাথে বেশ কয়েক দফা বৈঠক করা হয়েছে। তাদেরকে সেতুর উচ্চতা কমিয়ে নির্ধারণ করার অনুরোধ জানানো হয়েছে। কিন্তু বিআইডব্লিউটিএ কোনো ভাবেই উচ্চতা কমাতে রাজি হচ্ছে না। এতে করে সেতুটির ভবিষ্যত নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

 
hostseba.com
 

সংশ্লিষ্ট একজন বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলী গতকাল আলাপকালে জানান, বর্তমানে কালুরঘাট সেতুর উচ্চতা ৪ দশমিক ২ মিটার। এটিকে যদি আরো আট মিটার বা ২৫ ফুটের মতো উচু করা হয় তাহলে সেতু নির্মাণ করা সম্ভব হবে না। কারণ হুট করে রেললাইন উঁচু করে ফেলা যায় না। বেশ দূর থেকে ক্রমান্বয়ে উচু করতে হয়। আবার একইভাবে বেশ দূরে গিয়ে স্ল্যাভ মিলাতে হয়। প্রস্তাবিত কালুরঘাট সেতুর উচ্চতা যদি ৪০ ফুট করতে হয় সেক্ষেত্রে জান আলী হাট এবং গুমদন্ডি রেলওয়ে স্টেশনকে বহু উঁচু করতে হবে। যা অনেক কঠিন এবং ব্যয়বহুল কাজ। এই অবস্থায় সেতু নির্মাণের পুরো প্রকল্পটি নতুন করে ডিজাইন করাসহ অনেক কিছু পাল্টে ফেলতে হবে। যা সম্ভব হবে না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক কর্মকর্তা বলেছেন, বিআইডব্লিউটিএ সেতুর উচ্চতা নিয়ে অহেতুক জটিলতা করছে। নদীর ওই অংশটিতে তেমন কোনো জাহাজি চলাচল নেই। নেভিগেশন চ্যানেল রক্ষার নামে এই ধরনের জটিলতা তৈরি পুরো প্রকল্পটিকে হুমকির মুখে ফেলেছে।

এ প্রসঙ্গে রেলওয়ের পরিচালক (প্রকিউরমেন্ট) মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা আলাপকালে জানান, আমরা একটি কমিটি গঠন করেছি। কমিটি সরজমিনে বিষয়টি পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছে। আমরা বিআইডব্লিউটিএর সাথে বৈঠক করেছি। আলাপ আলোচনাও হয়েছে। কিন্তু উনারা নেভিগেশন চ্যানেল ১২.২ মিটার ক্লিয়ার চাচ্ছে। আমরা বিষয়টি নিয়ে আরো বৈঠক করব। আলাপ আলোচনা করব। একটি সুষ্ঠু এবং সুন্দর সমাধানে আসতে পারব।

আপনার মতামত দিন

Tayyaba Rent Car BBC News Ads

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team