1. seopay01833@gmail.com : Reporter : Reporter
  2. fhbadshah95@gmail.com : MJHossain : M J Hossain
  3. g21@exnik.com : isaac10j54517 :
  4. Janet-Baader96@picklez.org : janetbaader69 :
  5. tristan@miki8.xyz : katherinflower :
  6. makaylafriday74@any.intained.com : makaylafriday8 :
  7. mdrakibhasan752@gmail.com : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. g39@exnik.com : meredithbriley :
  9. muhibbbc1@gmail.com : Muhibullah Chy : Muhibullah Chy
  10. olamcevoy@baby.discopied.com : olamcevoy1234 :
  11. g2@exnik.com : roseannaoreily4 :
  12. b13@exnik.com : sebastianstanfor :
  13. g29@exnik.com : tangelamedina :
  14. g24@exnik.com : teenaligar6 :
  15. b15@exnik.com : xugmerri6352 :
  16. g16@exnik.com : yzvhildegarde :

মঙ্গলবার, ০৪ অগাস্ট ২০২০, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন

সবার দৃষ্টি আকর্ষন:
বিবিসিনিউজ২৪ডটকমডটবিডি এর পেইজে লাইক করে মুহূর্তেই পেয়ে যান আমাদের সকল সংবাদ
ব্রেকিং নিউজ :
গাইবান্ধায় করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬৬৮, মৃত্যু ১২ রাষ্ট্রপতি ও তার সহধর্মিণীকে ধন্যবাদ দিলেন চট্টগ্রাম করোনা আইশোলোসন সেন্টার কতৃপক্ষ চিতলমারীতে গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে বৃদ্ধার দাঁড়ি ছিড়ে নিলো প্রতিবেশী “গাজীপুরে স্বস্তিদায়ক ঈদ উদযাপন” কাজী মোঃ রাজু উপর হত্যার উদ্দেশ্য অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলা মানিকছড়িতে এই প্রাথম গ্র্যাজুয়েট ফোরাম’ নামক মানবিক সংগঠন জীবন বীমা কর্পোরেশনের গাইবান্ধা শাখা থেকে আবু মুছাকে সড়িয়ে নেয়ার দাবি তুলেছেন ডিও, ডি এমগণ জামালপুর বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ৮৫০ পিস ইয়াবা সহ বাগেরহাটে দুই বোন আটক বাগেরহাটে চারদলীয় শর্ট পিচ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত
ডিপ্রেশন এর জন্য দায়ী আধুনিকতা-রোমান সানা

ডিপ্রেশন এর জন্য দায়ী আধুনিকতা-রোমান সানা

Advertisements

Print Friendly, PDF & Email

মুহাম্মদ আবু আবিদ, বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রামঃ
প্রতিদিনের মত গতকালও বসে ছিলাম লাইভ প্রোগ্রাম প্রজন্ম আড্ডায়।তবে গতকালের প্রোগ্রামটা একটু ভিন্ন ছিল।কারণ আমার সাথে উপস্থিত ছিলেন রোমান সানা।অমায়িক তার ব্যবহার,সাথে হাস্যউজ্জ্বল মুখে অনুপ্রেরণার বানী অবাক করেছে আমাকে।অনুষ্ঠান মুহুর্তে যেন ভুলেই গিয়েছিলাম,আমি ওখানের উপস্থাপক।মনে হচ্ছিল দর্শকের মত চুপচাপ শুনে যাই রোমান সানার বক্তব্য।

বাংলাদেশ ছাত্রকল্যাণ ফেডারেশন কতৃক আয়োজিত প্রজন্ম আড্ডায় ২য় পর্বের অতিথি ছিলেন দেশ সেরা তীরন্দাজ ও বাংলাদেশ কে অার্চারে স্বর্ণ পদক উপহার দেয়া ইউথ আইকন রোমান সানা।তিনি তার শৈশব থেকে শুরু করে বর্তমান পর্যন্ত সকল দিক তুলে ধরেন এবং তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ব্যক্ত করে বলেন, আমার জন্য সকলের কাছে দোয়া চাই। আমি যেন বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে এক নতুন পরিচয়ে পরিচিত করে দিতে পারি।

তিনি তার শৈশব এর স্মৃতি টেনে বলেন আমি ফুটবল খেলতাম এবং ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন দেখতাম কিন্তাু হঠাৎ করে তীর ধনুক নিয়ে খেলার আগ্রহ জাগে এবং রোজ খেলা শুরু করি এক পর্যায় তীর ধনুক খেলাটা Love At First Sight এর মতন হয়ে ওঠে আমার নিকট তার পর থেকে নিয়মিত খেলা শুরু করি এবং কোন দিন পরিকল্পনায়ও ছিল না আমি বাংলাদেশকে বিশ্ব ধরবারে প্রতিনিধিত্ব করব। মাঝে মাঝে সকল কিছু স্বপ্নের মতন মনে হয়।

বাংলাদেশ ছাত্রকল্যাণ ফেডারেশন এর প্রচার সম্পাদক ও অনুষ্ঠানের সঞ্চালক হিসেবে তার কাছে জানতে চাইলাম Olympic এর প্রস্তুতি সম্পর্কে। তিনি বলেন বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সকল কিছু অনিশ্চয়তায় পরে গেলেও আমাদের ফেডারেশন ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় আমাদের কে ভার্চুয়াল ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করা সহ প্রতিনিয়ত আমাদের কোচের মাধ্যমে ঘরোয়া ভাবে ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করে দিয়েছেন এবং গাইড লাইন প্রেরণ করছেন। এ থেকে আমাদের পিছিয়ে পড়ার কোন ভয় আর রইল না।কারণ আমরা যদিও করোণা পরিস্থিতির ফলে ঘর বন্ধী হয়ে বসে আছি তবে আমরা আশা করি ঘরোয়া ট্রেনিংও আমাদের জন্য সুফল বয়ে নিয়ে আসব।

একপর্যায় বাংলাদেশের হয়ে গোল্ড মেডেল নিয়ে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর সাথে দেখা করা এবং মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর হাতে কুমিল্লা মিষ্টি খাওয়ার অনুভাতি জানতে চাইলে মুচকি হাসিতে তিনি বলেন আমি যখন মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর বাস ভবনে যখন দেখা করতে যাই আমি তার মতন দরদী প্রধানমন্ত্রী দেখি নি।আমাকে দেখার সাথে সাথে তিনি বলে উঠেন এই কে আছ মিষ্টি নিয়ে আসো আমি রোমান সানাকে নিজ হাতে মিষ্টি খাওয়াব তখনও আমার কাছে সবকিছু স্বপ্নের মতন মনে হচ্ছিল।হঠাৎ করে বুঝতে পারলাম স্বপ্ন নয় বাস্তবেই মাননীয় প্রধান মন্ত্রী আমাকে মিষ্টি খায়িয়ে দিয়েছন।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি মধ্যবিত্ত ঘরের সন্তান। মানুষের অভাব এবং আবেগ আমি বুঝার চেষ্টা করি তাই মানুষের পাশে সর্বদা থাকার জন্য একটি ফাউন্ডেশন ঘরে তুলব এবং মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করব।

ডিপ্রেশন নিয়ে আমাদের দু জনের আড্ডা চলে অনেকক্ষণ। এসময়ে তিনি ধর্মের পথে চলতে সবাইকে আহ্বান জানান।আমার কন্ঠের সাথে কন্ঠ মিলিয়ে বলেন, ডিপ্রেশন দূর করতে চাইলে নিজ নিজ ধর্মগ্রন্থ বুঝে বুঝে পড়তে হবে। তিনি বলেন, যদি আমরা সকলে এটা ভাবি যে,মা-বাবা আমাদের কত কষ্ট করে মানুষ করে যাচ্ছেন,তাহলে কেউ আর আত্মহত্যা করতে পারবেন না।

একসময় আমি তার কাছে জানতে চাইলাম, ৩ টি গোল্ড ম্যাডেল নিয়ে যখন বাড়ি পিরলেন তখন আন্টির অনুভূতি কি ছিল? এর জবাবে তিনি বলেন, তখনকার অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। তবে মনে আছে যখনি মায়ের গলায় পর পর ৩ টা ম্যাডেল ঝুলিয়ে দিলাম,হাসির সাথে চোখ দিয়ে টপ টপ করে পানি পড়েছিল আমার মায়ের।

সময় তো বাঁধ মানে না,তাও নির্দিষ্ট সময়ের চেয়ে বেশি সময় যে কোথায় দিয়ে চলে গেল বুঝতেই পারলাম না।বিদায় নিলাম, ঠিকই।কিন্তু কথাগুলো মনে থাকবে?

আপনার মতামত দিন
Your 250x250 Banner Code

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

Advertisements



Advertisements
© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team