1. seopay01833@gmail.com : Reporter : Reporter
  2. fhbadshah95@gmail.com : MJHossain : M J Hossain
  3. g21@exnik.com : isaac10j54517 :
  4. Janet-Baader96@picklez.org : janetbaader69 :
  5. tristan@miki8.xyz : katherinflower :
  6. makaylafriday74@any.intained.com : makaylafriday8 :
  7. mdrakibhasan752@gmail.com : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. g39@exnik.com : meredithbriley :
  9. muhibbbc1@gmail.com : Muhibullah Chy : Muhibullah Chy
  10. olamcevoy@baby.discopied.com : olamcevoy1234 :
  11. g2@exnik.com : roseannaoreily4 :
  12. b13@exnik.com : sebastianstanfor :
  13. g29@exnik.com : tangelamedina :
  14. g24@exnik.com : teenaligar6 :
  15. b15@exnik.com : xugmerri6352 :
  16. g16@exnik.com : yzvhildegarde :

বুধবার, ০৮ Jul ২০২০, ০৬:১২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।
কেন্দুয়ায় লটারীতে নির্বাচিত কৃষকের নাম পরিবর্তনের নেপথ্যে দূর্নীতির মূল হোতা কারা?

কেন্দুয়ায় লটারীতে নির্বাচিত কৃষকের নাম পরিবর্তনের নেপথ্যে দূর্নীতির মূল হোতা কারা?

Advertisements

Print Friendly, PDF & Email

মাঈন উদ্দিন সরকার রয়েলঃ সাম্প্রতিক সময়ে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়ার আলোচিত একটি ঘটনা সরকার নির্ধারিত মূল্যে বোরো মৌসুমে ধান কেনার জন্য লটারীতে নির্বাচিত কৃষকের নাম পরিবর্তন করার ঘটনা। কম্পিউটার কম্পোজ করার সময় নির্বাচিত কৃষকের নাম পরিবর্তনের ঘটনায় শোকজ করা হয়েছে কেন্দুয়া উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক ওয়াহেজুর রহমান খান নোমানকে।

এখন কেন্দুয়ার সর্বত্র জনমুখে একটাই আলোচনা চলছে এই খাদ্য পরিদর্শকের সাথে যোগসাজশে লটারীতে নির্বাচিত কৃষকের নাম পরিবর্তনের নেপথ্যে দূর্নীতির মূল হোতা কারা? তার সাথে আর কারা জড়িত? কাদের সাথে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ওই কর্মকর্তা এই দূর্নীতির ঘটনা ঘটিয়েছে? ওরা কারা?

তাদের মুখোশ কি আদৌ উন্মোচিত হবে কি না? এ নিয়ে জনমনে চলছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।
উল্লেখ্য নেত্রকোণার কেন্দুয়ায় সরকারিভাবে ধান ক্রয়ের জন্য বাছাইকৃত কৃষকের লটারির নাম পরিবর্তন করায় খাদ্য অফিসের ফুড ইন্সপেক্টর ওয়াহেজুর রহমান খানকে শোকজ করা হয়েছে।

গত বুধবার (২১ মে) শোকজের জবাব তিন কার্যদিবসে দেয়ার সময় বেঁধে দিয়ে নোটিশ প্রদান করেছেন উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা একে এম শামছুদ্দিন আহমেদ।

এ ঘটনার পর থেকে এ ঘটনার সাথে জড়িত বিভিন্ন নেতাকর্মীর নাম বিচ্ছিন্ন ভাবে আলোচনা হচ্ছে। তারা ধরাছোয়ার বাহিরেই থাকবে নাকি তদন্ত শেষে তাদের নাম অচিরেই প্রকাশ হবে এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে কি? এমন নানামুখী আলোচনা বিরাজ করছে বিভিন্ন মহলের আলোচনায়।

জানা যায়, গত ১৩ মে সরকার নির্ধারিত মূল্যে কৃষকদের কাছ থেকে বোরো ধান ক্রয়ের লক্ষ্যে লটারি অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপজেলার ২ হাজার ৩১৭ জন কৃষককে নির্বাচিত করা হয়েছে। নির্বাচিত কৃষকের তালিকা কম্পপিউটার কম্পোজের দ্বায়িত্ব দেয়া হয়েছিল উপজেলা খাদ্য অফিসের ফুড ইন্সপেক্টর ওয়াহেজুর রহমান খানকে।

তিনি ওই তালিকা কম্পোজের সময় বেশ কিছু নাম পরির্বতন করে কম্পোজ করেন। কম্পোজকৃত সেই তালিকা প্রকাশের চুড়ান্ত পর্যায়ে যাওয়ার আগেই উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ অনিয়মের বিষয়টি জানতে পেরে উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ খবিরুল আহসানকে তদন্তের নির্দেশ দেন।

তদন্তের প্রাথমিক পর্যায়ে অনিয়মের সত্যতা পেয়ে ফুড ইন্সপেক্টর ওয়াহেজুর রহমান খানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করে উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা এবং আগামী ৩ কার্য দিবসের মধ্যে তার জবাব দিতে বলা হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার
শোকজের সেই ৩ কার্যদিবস শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে তদন্তের রিপোর্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে জমা দেয়ার বিষয়টি জানিয়ে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ খবিরুল আহসান জানান, ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।

উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা একে এম শামছুদ্দিন আহমেদ জানান, শোকজের জবাব পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আল-ইমরান রুহুল ইসলাম বলেন, রিপোর্ট পেয়েছি অফিস খোলার পর এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এখন শুধুই অপেক্ষার পালা এ ঘটনায় ওই কর্মকর্তার সাথে আরও সম্পৃক্ত দোষী কারা? তাদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে?

আপনার মতামত দিন
Your 250x250 Banner Code

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

Advertisements



Advertisements
© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team