Categories
গণমাধ্যম চট্টগ্রাম-বিভাগ জাতীয় রাজনীতি লিড নিউজ সারাদেশে

করোনার ভয়, করবো জয়!

মুহাম্মদ আবু আবিদ, জেলা বিশেষ প্রতিনিধিঃ
মেয়েটির নাম আনিশা।করোনা কি তা সে জানে না।বোঝার বয়সও হয়নি। হাঁটতে শিখেছে কিছুদিন আগে,কথা বলে অল্প অল্প।বাবার বুকে পাখির ছানার মতো ভালোবাসায় আষ্টেপৃষ্টে ঘুমায়। বাবা নামের মানুষটি হঠাৎ ঘুম ভেঙে আস্তে ধীরে উঠে পড়ে। মেয়ের মুখের দিকে তাকায়।

ভালোবাসার টানে হয়তো একবার চুমো খেতে চেয়েছিল,কিন্তু খায় নি।কারণ মেয়ে জেগে যাবে।আর মেয়ে জেগে গেলে যে তার স্ত্রীও ঘুম থেকে উঠে পড়বে।হয়তো তার সহধর্মিণী তাকে যেতে বাধা দিবে না,তবুও উঠে গেলে পারিবারিক ভালোবাসা যে আরও বেড়ে যাবে।তাতে করে তার বাইরে যাওয়ার সময় খারাপ লাগাটা বৃদ্ধি পাবে।

তারপর মানুষ টি রুম থেকে বের হয়, মায়ের কাছে যায়,ইচ্ছে করে জড়িয়ে ধরে মাকে বলবে,মা আমি ত্রাণ পৌছে দিতে ওদের বাড়ি যাচ্ছি। কিন্তু তা আর বলা হয়ে উঠে না।মাকেও ঘুম ভাঙতে দেয়া যাবে না।হয়তো জেগে থাকলে বলত, খোকা সাবধান থাকিস,আর চোখ দিয়ে দু’ফোটা জল গড়িয়ে পড়ত।দরকার কি? থাক তাদের দোয়া তো তার সাথেই আছে। রেডি হয়ে নেমে পড়ল করোনা মোকাবিলার যুদ্ধে।

মানুষটি আর কেউ নয়,তিনি হলেন চট্টগ্রামের বেসরকারি কেন্দ্রীয় কারাপরিদর্শক জনাব আজিজুর রহমান আজিজ। করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন নিজের ও পরিবারের মায়া তুচ্ছ করে। নিজেকে নিরাপদে রেখেই মানুষের খোঁজ খবর নিচ্ছেন দলমত নির্বিশেষে।তিনিও প্রচারবিমুখ মানুষ। আর আমি তো তাদেরই খুঁজে বেড়াই।তাই জোর করেই সময় নিলাম, তার থেকে।প্রচার নয় অনুপ্রেরণা চমার লেখার মূলমন্ত্র। তাকে এটা বোঝাতে সক্ষম হলাম।

চট্টগ্রাম নগরীতে ইতিমধ্যেই প্রায় ৬০০০ পরিবারের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন ত্রান সামগ্রী। তাতেই তিনি ক্ষান্ত হন নি, তিনি ভেবেছেন তার সাথে কাজ করা কর্মীদের জন্য। নিজহাতে তাদের বাসায় যেয়ে ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছেন এ মানবতার ফেরিওয়ালা। প্রায় ৩০০ নেতা-কর্মীর বাসায় যেয়ে পৌঁছে দেন ত্রাণ সামগ্রী। তবে তাদের সকলকে সম্মান করে এগুলোকে তিনি ত্রাণ সামগ্রী বলতে রাজি নন।এগুলোকে তিনি বলছেন উপহারসামগ্রী।এছাড়াও তিনি পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে প্রায় ১০০ পরিবারের হাতে পৌঁছে দিলেন খাদ্য সামগ্রী।
এক প্রশ্নের জবাবে আজিজুর রহমান আজিজ বলেন, আমার অনুপ্রেরণা আমার পরিবার ও চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র মরহুম এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী।তবে বর্তমানে আমাদের উৎসাহিত করে যাচ্ছেন তারই সুযোগ্য সন্তান, চট্টলারত্ন ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজনীতি করি দেশের জন্য, মানুষের জন্য। তো আজ যদি তাদের এই ক্রান্তি লগ্নে তাদের পাশে থাকতে না পারি তাহলে কি লাভ এ রাজনীতি করে।আমি দলমত নির্বিশেষে সাহায্য করি।আমার কাছে মানুষ পরিচয় ই সবচেয়ে বড়।

তার কাছে হালিশহর তথা চট্টগ্রামে করোনাতে প্রশাসনের অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি হেসে উত্তর দেন, আগে মানুষ প্রশাসনকে যতটা সম্মান করত, তার চেয়ে অনেকগুন বেশি মানুষ এখন প্রশাসনের ব্যক্তিবর্গকে সম্মান করছে।তারা যে এক একজন জীবন যোদ্ধা তা সবাই নিরদ্বিধায় মেনে নিচ্ছে। তাই সম্মান ও ভালোবাসা তাদের প্রাপ্য।

তারপর তার কাছ থেকে জানতে পারলাম আরও ১০০০ পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী দেয়ার ইচ্ছে তার আছে। তিনি আরও বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত আমি দিতে পারবো,আমি ততক্ষণ তাদের সাধ্যমত সাহায্য করে যাব।তার সম্পর্কে একটি কথা না বললেই নয়,তা হল তিনি মধ্যবিত্ত পরিবারদের সাহায্য করার সময় তাদের জানানও না যে,তিনি সাহায্য করছেন। প্যাকেটের উপর লেখা থাকে উপহার সামগ্রী।

ব্যস্ততম এই মানুষকে দশ মিনিটের জন্য পেয়ে সত্যি সত্যিই অনেক কিছু শিখলাম।তাদের উপর সরকারি অর্পিত কোন দায়িত্ব নেই।কিন্তু তবু কাজ করে মানবিক, নৈতিক ও সামাজিক দায়িত্ববোধ থেকে।তাদের সম্মানার্থে হয়তো লেখার চেয়ে বেশি কিছু করতে পারবো না।কিংবা দাঁড়িয়ে একবার স্যালুট তো দেয়া যেতেই পারে এ ধরনের মানসিকতার মানুষের জন্য।আমি সর্বদাই খুঁজে বেড়াই তাদের মতো মানুষদের।লেখার কারণ হল – সবাই যদি তাদের কর্ম থেকে শিক্ষা নিয়ে পাশের বাড়ির হাঁড়ি টা চুলায় উঠেছে কিনা খবর নেয়,তাহলে হয়তো আমি কলাম লেখার মানুষই পাব না। তাহলে হয়তো করোনা আমাদের কোন ক্ষতিই করতে পারবে না।আর আমার লেখার মূল্যও থাকবে।জেগে উঠুক মানবতা।

অবশেষে একটি কথাই সমস্বরে বলতে চাই, আজিজুর রহমান আজিজ, এগিয়ে যান।আপনার সারথি হতে না পারলেও অন্তত বলতে পারবো,ভালোবাসা অবিরাম। জয় হোক মানবতার। জয় হোক মানুষের।

Categories
অপরাধ আইন-আদালত গণমাধ্যম চট্টগ্রাম-বিভাগ জাতীয় লিড নিউজ সারাদেশে

টেকনাফে ৩ শতাধিক রোহিঙ্গা ভর্তি জাহাজ আটক

ওসমান আবির(টেকনাফ প্রতিনিধি)ঃকক্সবাজারে টেকনাফে মালয়েশিয়া ফেরত ৩ শতাধিক রোহিঙ্গাকে আটক করে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড সদস্যরা। বুধবার রাত ৯টার দিকে টেকনাফের বাহারছড়া শামলাপুরের জাহাজ ঘাট থেকে তাদের আটক করা হয়। তারা মালয়েশিয়া যেতে না পেরে এই এলাকা দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করে।

টেকনাফ স্টেশন কোস্ট গার্ডের কর্মকর্তা লে. কমান্ডার এম সোহেল রানা এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, রোহিঙ্গা ভর্তি একটি বড় জাহাজ টেকনাফ জাহাজপুরা ঘাট দিয়ে উঠার সময় ৩ শতাধিক রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়েছে। তারা বেশ কিছু দিন আগে সাগর পথে মালয়েশিয়া যাত্রা করছিল। কিন্তু সেখানে ভিড়তে না পেরে আবার চলে আসেন। তবে সংখ্যাটা কম বেশি হতে পারে।

টেকনাফ উপজেলার ইউএনও মো.সাইফুল ইসলাম বলেন, মালয়েশিয়া ফেরত ৩ শতাধিক রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়েছে। তারা মালয়েশিয়া যেতে না পেরে আবার ফেরত আসেন। তাদের আগে এক জায়গায় জড়ো করা হচ্ছে। বিস্তারিত পরে জানানো হবে। তবে বেশির ভাগ নারী ও শিশু ছিল।

উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গা মো.জোবাইর বলেন, গত দুই মাস আগে ৪৮২ জন রোহিঙ্গা নিয়ে একটি ট্রলার সাগর পথে মালয়েশিয়ার পথে রওয়ানা দেয়। কিন্তু সে দেশে কড়াকড়ির কারণে ঢুকতে না পেরে এখানে ফিরে আসে। সাগরে এত দিন ভাসমান ছিলাম। এখন ট্রলারে ৩৪২ জন রয়েছে। তাদের ট্রলারে ২৮ জন মারা গেছে। তার বাড়ি টেকনাফ নয়াপাড়া ক্যাম্পে।

Categories
গণমাধ্যম চট্টগ্রাম-বিভাগ জাতীয় লিড নিউজ সারাদেশে

চট্টগ্রামে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, নতুন আক্রান্ত ৫ জন

বিবিসিনিউজ২৪,ডেস্কঃ প্রতিদিনই চট্টগ্রামে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। গত ১২ দিনে জেলায় রোগীর সংখ্যা বেড়ে এখন ৩২ জন।

বুধবার (১৫ এপ্রিল) চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটে অবস্থিত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) নতুন ১০৯ নমুনা পরীক্ষায় আরও ৬ জনকে করোনা পজেটিভ পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে ৫ জনই চট্টগ্রামের।

রাত পৌনে ১০টার দিকে গনমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি। তিনি বলেন, বুধবার বিআইটিআইডিতে ১০৯টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন আরও ৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। ৫ জন চট্টগ্রামের।

চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, চট্টগ্রামে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয় ৩ এপ্রিল। চট্টগ্রামের দামপাড়ায় ৬৭ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি তার ওমরাফেরত মেয়ের মাধ্যমে সংক্রমিত হয়েছেন বলে ধারণা করা হয়। পরে ৫ এপ্রিল ওই ব্যক্তির ২৫ বছর বয়সী ছেলের শরীরেও করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়। তবে গতকাল নতুন পরীক্ষায় তিনি করোনা নেগেটিভ হয়েছেন।

৮ এপ্রিল চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত হন তিনজন। একদিন বিরতি দিয়ে ১০ এপ্রিল বিআইটিআইডিতে নমুনা পরীক্ষায় আরও দুইজনকে করোনা পজেটিভ পাওয়া যায়। পরে ১১ এপ্রিল চট্টগ্রামে করোনারোগী হিসেবে শনাক্ত হন তিনজন। ১২ এপ্রিল চট্টগ্রামে সে সংখ্যা বেড়ে পাঁচজন করোনারোগী শনাক্ত হয়। আক্রান্তদের একজন শিশু ওইদিন দিবাগত রাতে জেনারেল হাসপাতালে মারা যায়। এছাড়া এদিন ট্রাফিক পুলিশের এক সদস্যও করোনা আক্রান্ত হন।

সোমবার (১৩ এপ্রিল) চট্টগ্রামে শনাক্ত হওয়া দুই করোনা রোগীর একজন নারী করোনা শনাক্তের আগেই আইসোলশনে থাকা অবস্থায় মারা যান। গতকাল সর্বোচ্চ ১১ জন করোনারোগী শনাক্ত হয়। এর মধ্যে এক চিকিৎসক, সাতকানিয়ার পাঁচ যুবক ও নগরে সাগরিকা এলাকার এক পরিবারের চারজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এ নিয়ে চট্টগ্রামে এক শিশু, এক বৃদ্ধ ও এক নারীর করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এছাড়া আইসোলশনে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন চারজন। মৃত্যুর পর তাদের তিনজনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ পাওয়া যায়। একজনের ফলাফল জানা যায়নি।

 

Categories
অপরাধ আইন-আদালত গণমাধ্যম চট্টগ্রাম-বিভাগ জাতীয় লিড নিউজ সারাদেশে

ফেনীতে ফেসবুক লাইভে এসে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা,স্বামী আটক!

বিবিসিনিউজ২৪,ডেস্কঃ দেশে করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যেই ফেসবুক লাইভে এসে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন স্বামী। টুটুল ভূইয়া নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে আজ বুধবার দুপুর সোয়া একটার দিকে লাইভে এসে এমন নৃশংস হত্যাকাণ্ড ঘটান স্বামী। পরে হত্যার অভিযোগে ওই ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

জানা যায়, হত্যকারীর পুরো নাম ওবায়দুল হক টুটুল ভুইয়া। নৃশংসতার শিকার নারীর নাম তাহমিনা আক্তার।

ভিডিওতে দেখা যায়, খুন করার আগে টুটুল বলছিল, একজনের জন্য তার পরিবার ধ্বংস হয়ে গেছে। ৮ মাস বয়সে তার মেয়েকে রেখে চলে যায় সে। তার সারা জীবন ধ্বংস হয়ে গেছে তার স্ত্রীর জন্য এমন দাবি করে ক্ষোভ প্রকাশ করতে করতে এক পর্যায়ে স্ত্রীকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন টুটুল। কোপানোর পরপরই নিস্তেজ হয়ে যান ভুক্তভোগী নারী।

এরপরই টুটুল বলতে থাকে, সে এখন শেষ। আপনারা আমার বাবা-মা ও এতিম মেয়েকে দেখে রাখবেন। এই খুনের সঙ্গে তিনি নিজেই জড়িত এবং অন্য কেউ এরসাথে সংশ্লিষ্ট নয়, এমনটা বলতে থাকেন তিনি।

লাইভ ভিডিওটির ক্যাপশনে লেখা ছিল, ‘সবাই আমাকে ক্ষমা করবেন। আমার বাবা-মা, ভাই-বোন ও অনাথ মেয়েটার খেয়াল করবেন।’

খুন করার লাইভ ভিডিওর পর, একটি মেয়েকে নিয়ে আরেকটি ভিডিও পোস্ট করেন টুটুল ভূইয়া। সেখানে তার দাবি, তার মেয়ের যখন ৮ মাস বয়স তখন সে (তার স্ত্রী) ছেড়ে চলে যায়। এখন আবার সে ফেরত এসেছে। তার পুরো পরিবার ব্ল্যাকমেইল করে অনেক সমস্যায় ফেলেছে। বাচ্চা মেয়েটাকে অনেক নির্যাতন করা হয়েছে। এরপর তিনি নিজেও আত্মহত্যার ইঙ্গিত দেয় ওই ভিডিওতে। তবে খুন করার লাইভ ভিডিওটি ঘণ্টাখানেক পর আর টুটুলের প্রোফাইলে পাওয়া যায়নি।

পুলিশ জানিয়েছে, হত্যায় অভিযুক্ত টুটুল ভূইয়ার বাড়ি ফেনী পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বাড়াঈপুর এলাকায়। টুটুল ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে কাজ করত। সন্তানদের নিয়ে তার স্ত্রী বাড়িতেই থাকত।

টুটুলের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, সে ঢাকায় থাকা অবস্থায় তার স্ত্রী তাহমিনা পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এটা নিয়ে তাদের মধ্যে ঝামেলা হয়। তাহমিনার বাড়ি থেকে টাকা চেয়ে মানসিক হয়রানি করা হতো বলে দাবি করেন টুটুল। আটকের পর টুটুল পুলিশের কাছে খুনের কথা স্বীকার করে।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, টুটুলের প্রোফাইলে লাইভ ভিডিও তারা পায়নি। তবে, তার পোস্টগুলো যাচাই-বাছাই চলছে। নিহতের স্বজনরা মামলা করলে এ অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

ফেনী সিআইডি পুলিশের উপপরিদর্শক শহিদ উল্যাহ গনমাধ্যমকে বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে টুটুলের মা বোন ভাইও জড়িত। তাদেরকেও আইনের আওতায় আনা হবে।’

তাহমিনার বোন রেহানা আক্তার জানিয়েছে, সে ঢাকায় থাকা অবস্থায় পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এটা নিয়ে তাদের মধ্যে ঝামেলা হয়। টুটুল মাদকাসক্ত। তার চরিত্র খারাপ। সে বিয়ের আগেও বহু মেয়েকে নষ্ট করেছে। ২০১৩ সালে আমার বিয়ের সময় আমার বোনের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এরপরে প্রেমের সম্পর্কের সুবাধে তাদেও বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের দাবিতে মারধর করত।

Categories
গণমাধ্যম জাতীয় ময়মনসিংহ-বিভাগ লিড নিউজ সারাদেশে

শেরপুরে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ডা.মোবারক হোসেনের অভিজ্ঞতা ও পরামর্শ

মো:এনামুল হক,স্টাফ রিপোর্টার,শেরপুর: শেরপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.মোবারক হোসেন করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় শেরপুর বাসীর উদ্দেশ্যে তার সুচিন্তিত অভিজ্ঞতা ও পরামর্শ প্রদান করেছেন।

শেরপুরে প্রথম দিকে একটু ঢিলেঢালা থাকলেও গত ০৫/০৪/২০ ইং তারিখে প্রথম রোগী সনাক্ত হওয়ার পর জনমনে ব্যাপক ভীতির সঞ্চার হয়েছে। সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য প্রশাসন জোরালো ভুমিকা পালন করলেও জরুরী প্রয়োজনে জনগন রাস্তায় বের হচ্ছে।

এমতাবস্থায় অনেকের পক্ষ থেকে শেরপুরকে লকডাউন করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। যদিও প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনও অফিসিয়ালি লকডাউন কথাটি বলা হয়নি। তবে আমি মনে করি এটা বলা জরুরী নয়। জরুরী হচ্ছে সামাজিক দুরত্ব তথা শারীরিক দুরত্ব (কমপক্ষে ৩ ফুট) বজায় রাখা, এমনকি নিজের বাসাতেও।

লকডাউন একটি ইংরেজী পরিভাষা। বাংলায় এর অর্থ হচ্ছে- অতি জরুরী প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বের হবে না। আর জরুরী প্রয়োজনের বের হলেও সামাজিক/ শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে চলবে। কিন্তু সাধারনের অনেকেরই ধারনা, লকডাউন মানে কেউ ঘর থেকে বের হতে পারবে না, যার যার ঘরে তালা দিয়ে রাখা হবে, রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেয়া হবে ইত্যাদি।

একটা কথা মনে রাখা প্রয়োজন, এই মহামারী একটি দীর্ঘ মেয়াদি মহামারী। সবকিছু বন্ধ করে এত বিপুল সংখ্যক মানুষকে সরকারের পক্ষে দীর্ঘদিন বসিয়ে বসিয়ে খাওয়ানো সম্ভব নয়। তাছাড়া এটি বাস্তবসম্মতও নয়। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে খেটে খাওয়া মানুষের জন্য স্বল্প পরিসরে সুযোগ দেওয়া যেতে পারে। তবে পরিবহন সেক্টর অবশ্যই বন্ধ রাখতে হবে।

আর ইতিমধ্যেই প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘরে থাকা, সামাজিক/ শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখার ব্যপারে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আন্তঃ জেলা যাতায়াত বন্ধ করা হয়েছে। তবে হ্যা, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার (নয়ানী বাজার), কাচা বাজার ইত্যাদি অনত্র সরিয়ে সামাজিক/ শারীরিক দুরত্ব নিশ্চিত করা যেতে পারে।

যারা অন্য জেলা থেকে (ঢাকা, নারায়নগঞ্জ) শেরপুরে নিজ বাড়িতে এসেছেন তাদের ব্যপারে এলাকায় অতি মাত্রায় ভীতি ছড়ানো হচ্ছে। তাদেরকে নানাভাবে ভয় ভীতি দেখানো হচ্ছে, রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। ফলে তারা ভয় পেয়ে পালিয়ে গোপনে অন্যত্র অবস্থান করছেন। অথচ তারা যদি ঘরেই থাকে তাহলে আশেপাশের জনসাধারনের ভয়ের কোন কারন নেই, সংক্রমনের ঝুকিও নেই।

এতে বুঝা যায়, সামাজিক/ শারীরিক দুরত্বের বিষটি এখনও আমাদের কাছে স্পষ্ট নয়। এমতাবস্থায় যারা সর্দি কাশি জ্বরে ভুগছেন তারা কোন পরীক্ষা করতে চাচ্ছেন না। কারন তারা সামাজিক ভাবে বয়কটের সম্মুখীন হচ্ছেন, অপমানিত বোধ করছেন। এতে সংক্রমনের ঝুকি আরও বেড়ে যাচ্ছে।

আমি মনে করি লকডাউনের চেয়ে সামাজিক/ শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করতে পারলে এই মহামারি থেকে হয়তো আমরা দ্রুতই মুক্তি পাবো ইনশা-আল্লাহ। আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।

Categories
গণমাধ্যম জাতীয় ঢাকা-বিভাগ লিড নিউজ সারাদেশে

গাজীপুরে জেলা প্রশাসনের অভিযান- চলমান!

এজি কায়কোবাদ, বিশেষ প্রতিনিধি, গাজীপুরঃ করোনা ভাইরাসের সংক্রমন প্রতিরোধে সরকারী নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আজ জোড় পুকুরপাড়, জয়দেবপুর বাজার, ধীরাশ্রম, বাইপাস, বনমালা সহ জয়দেবপুর চৌরাস্তা, ভোগরা চৌরাস্তা, বোর্ডবাজার, শিববাড়ী মোড়সহ শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন জনাব রাবেয়া পারভেজ, সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসন, গাজীপুর। অভিযানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এবং গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ অংশ নেয়।

বোর্ডবাজার এবং চৌরাস্তা এলাকার অনেক গার্মেন্টস এর সামনে শ্রমিকদের সমাবেত হতে দেখা গেছে। তারা বেতন নিতে এসেছিলো।

রেলস্টেশন হতে ধীরাশ্রম রাস্তায় রেল লাইনের উভয় পাশে লাইনের উপরে অনেক মানুষ বসে বসে আড্ডা দিতে দেখা যায়, আবার অনেককেই বাচ্চা দিয়ে অভিভাবকরা ঘুরি উড়াচ্ছে দেখা যায়। তাদেরকে পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করে দ্রুত বাসায় পাঠিয়ে দিয়ে হয়।

আজ ১৫/৪/২০২০ তারিখে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কার্যক্রমে মেঘডুবী বাজার, কলের বাজার ও মীরের বাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন জনাব হাফিজা জেসমিন, সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসন, গাজীপুর।

এসময় বাজারে কেনাকাটা করতে আসা অনেকেই সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে অবস্থান করছিলেন না। তাদের সচেতন করা হয়। অপ্র‍য়োজনে ঘোরাঘুরিরত বৃদ্ধ ও শিশুদের বুঝিয়ে বলে বাসায় পাঠানো হয়। কয়েকটি চায়ের দোকানে আড্ডা বন্ধ করে তৎক্ষনাৎ দোকান বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়। বেলা ১২ টার পর জরুরী ঔষধ ছাড়া অন্যান্য দোকান বন্ধ করে দেয়া হয়। এসময় একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীকে সতর্কীকরণ করা হয়।
অভিযান পরিচালনায় সহায়তা করেন গাজীপুর মেট্রোপলিটান পুলিশ এর সদস্যবৃন্দ।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমন প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আজ জয়দেবপুর চৌরাস্তা, ভোগরা চৌরাস্তা, বোর্ডবাজার, শিববাড়ী মোড়সহ শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন জনাব এ, কে, এম গোলাম মোর্শেদ খান, সহকারী কমিশনার (ভূমি), টংগী রাজস্ব সার্কেল, গাজীপুর।
অভিযানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এবং গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ অংশ নেয়।
এসময় সরকারী নির্দেশনা অমান্য করায় কয়েকজনকে সতর্ক ও জরিমানা করা হয়।

আজ সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৩.৩০ পর্যন্ত গাজীপুরের সালনা, চৌরাস্তা, দত্তপাড়া, টংগী বাজার, স্টেশনরোড এলাকায় মোবাইলকোর্ট পরিচালনা করেন জনাব ফাতেমাতুজ জোহরা, সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসন, গাজীপুর।
এসময়-
বেশ কয়েকটি রাস্তায় গার্মেন্টস শ্রমিকরা রাস্তা বন্ধ করেছে দেখা যায়। যার ফলে স্বাভাবিক যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটে।

মির্জাপুর বাজার ১২ টার মধ্যে বন্ধ করে দেয়া হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সদর মহোদয়ের সাথে কথা বলে বাজার কমিটির সভাপতিকে আগামীকাল থেকে বাজার স্কুলের মাঠে সরিয়ে নেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়।

দত্তপাড়ায় সরকারি নির্দেশ অমান্য করে দোকান খোলা রাখায় একটি দোকানকে দন্ডবিধি ১৮৬০ অনুযায়ী অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।

টংগী বাজারে কিছু আড়ত খোলা পাওয়া গেলে তা বন্ধ করা হয়।

দুটি গার্মেন্টস সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখছেন না বলে তাদের সতর্কীকরণ করা হয়।

আড্ডারত অবস্থায় বেশ কিছু মানুষকে পাওয়া যায় যাদের বুঝিয়ে বাসায় পাঠানো হয়।

অভিযানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লেফঃ ইশরাক, গাজীপুর মেট্রোপলিটান পুলিশের এএসপি জনাব শরীফ সহ উভয় বাহিনীর সদস্যগন সহযোগীতা করেন।

আজ ১৫ এপ্রিল ২০২০ খ্রি: তারিখ করোনা ভাইরাস (CoVID 19) সংক্রমণ প্রতিরোধে জনসমাগম রোধে উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রম পরিচালনা করেন জনাব মোঃ আবুল মনসুর, সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসন, গাজীপুর।

জনসমাগম পূর্বের চেয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে মর্মে প্রতীয়মান হয়েছে। উপস্থিত জনসাধারণকে প্রানঘাতী করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সরকারি নির্দেশনা মেনে চলতে নির্দেশ প্রদান করেন জনাব মোঃ আবুল মনসুর, সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসন, গাজীপুর।

Categories
গণমাধ্যম চট্টগ্রাম-বিভাগ জাতীয় লিড নিউজ সারাদেশে

কথা দিয়েছিল মধ্যবিত্তদের পাশে থাকবে পরৈকোড়া ব্লাড ব্যাংক

মোঃ হাসান মাহমুদঃ প্রথম ২য় ৩য় ৪র্থ ৫ম ৬ষ্ট ধাপে মোট ৪০ টি মধ্যবিত্ত পরিবারে হাতে চাল, ডাল, আলু, পিঁয়াজ, তেল ইত্যাদি সহযোগিতা তুলে দিল পরৈকোড়া ব্লাড ব্যাংক পরিবারের সদস্যরা,, বিরামহীন ছুটে চলছেন এই দুর্যোগময় দিনে সঠিক মানুষগুলোর কাছে সঠিক জিনিসটা পৌছে দিয়ে তাদের মুখে একটু হাসি ফুটানোর জন্য।

পরৈকোড়া ব্লাড ব্যাংক পরিবারের এডমিন মুহাম্মদ আনিসুর রহমান ধন্যবাদ জানিয়েছেন যারা পরৈকোড়া ব্লাড ব্যাংক পরিবারকে বিভিন্নভাবে সাহায্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিছেন তাদের এবং দোয়া চেয়েছেন পরৈকোড়া ব্লাড ব্যাংক পরিবারের জন্য ইনশাহআল্লাহ ভবিষ্যতে যেন এর চেয়ে আরো বড় পরিসরে বিভিন্নভাবে আপনাদের পাশে এসে দাড়াতে পারে পরৈকোড়া ব্লাড ব্যাংক।

Categories
গণমাধ্যম চট্টগ্রাম-বিভাগ জাতীয় লিড নিউজ সারাদেশে

টিসিবির ন্যায্য মূল্যে পণ্য বিক্রয় কাপ্তাই রাস্তার মাথা চান্দগাঁওে

মোঃ হাসান মাহমুদ প্রতিনিধি : চট্টগ্রাম চান্দগাঁও থানার কাপ্তাই রাস্তার মাথা মোড়ে টিসিবির ন্যায্য মূল্যে পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এতে বিভিন্ন পেশার মানুষ এসে তাদের প্রয়োজনীয় পণ্য ন্যায্য মূল্য ক্রয় করেন।

চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন থানা ওয়ার্ডে এ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন টিসিবি। সাধারণ মানুষ এই দুর্যোগ মূহুর্তে ন্যায্য মূল্যে পণ্য পেয়ে উপকৃত হচ্ছেন বলে কয়েকজন জানান।

নিম্ন আয়ের মানুষ বলেন, এ কার্যক্রম যেন বেশি করে চালু করা হয়। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের আতংকে মানুষ আতংকিত। রিক্সা চালক, গাড়ি চালক, ফুটপাতের ছোট খাটো দোকান বন্ধ থাকা তারা এখন খুবই কষ্টে আছেন। কাজ নেই তাই টাকাও নেই তাদের কাছে। মধ্যবীত্ত পরিবার গুলো লজ্জায় কিছু করতে পারছেনা।

টিসিবির চাল তেল ডাল ইত্যাদি পেয়ে হয়তো গরীব মানুষের কিছুটা খাদ্য কপালে জোটে। কিন্ত মধ্যবীত্তরা না পারে কাউকে বলতে না পারে পেটে জ্বালা সইতে। তাই অনেকের মুখে শুনেছি যে সরকার তাদের জন্য কোনো একটা ব্যবস্থা যেন করেন। টিসিবির কার্যক্রমে সন্তুষ্ট প্রকাশ করছেন ওয়ার্ডের সাধারণ মানুষ ও ওয়ার্ড কাউন্সিল।

এই কার্যক্রম পরিচালনা করতে পেরে খুশি ডিলার ও টিসিবির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। টিসিবির এ কার্যক্রম গাড়ী মধ্যে চলে। টিসিবির সরবরাহ করার জন্য যত পণ্য আছে তার দাম ডিজিটাল ব্যানারে দেওয়া থাকে। যার কারনে কোনো সাধারণত মানুষ প্রতারিত না হয়।

Categories
গণমাধ্যম চট্টগ্রাম-বিভাগ জাতীয় লিড নিউজ সারাদেশে

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ নেতার এক’শ পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ

বাঁশখালী সংবাদদাতাঃ চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ নেতার ব্যক্তিগত উদ্যোগে কয়েক শত পরিবারের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

দেশের চলমান পরিস্থিতিতে কোভিড- ১৯ করোনা ভাইয়ারাসের প্রার্দুভাবে গৃহবন্ধী অসহায় পরিবারের মধ্যে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের নব গঠিত কমিটির সহ-সম্পাদক তানভীর সিকদারের ব্যক্তিগত ফান্ড থেকে এ ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছেন।

গত মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) বাঁশখালী উপজেলার পৌর সদর সহ বিভিন্ন ইউনিয়নের গরীব, অসহায়, প্রতিবন্ধী ও দিন মজুর মানুষের মাঝে ছাত্রলীগ নেতা ও তার সহযোদ্ধাদের নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে এই ত্রাণ পৌছে দেন।

ত্রাণ বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন অামান উল্লাহ আমান, শুভ জিৎ, টিপন সুশীল, জোনায়েদ শামীম, রণি দেওয়ানজি, কামরান আকাশ, আমির হোসেন সহ উপজেলা, পৌরসভা, কলেজ ও বিভিন্ন ইউনিয়নের নেতা-কর্মিরা।

Categories
গণমাধ্যম জাতীয় ময়মনসিংহ-বিভাগ লিড নিউজ সারাদেশে

কেন্দুয়ায় ৯৫ ব্যাচের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

মাঈন উদ্দিন সরকার রয়েলঃনেত্রকোনার কেন্দুয়ার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ জয়হরি স্প্রাই সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি ১৯৯৫ ইং ব্যাচের শিক্ষর্থীদের উদ্যোগে কেন্দুয়ার নিম্ন আয়ের ৫শতাধিক মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছেন।

বুধবার (১৫ এপ্রিল) সকাল ১১টায় সাবেরুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে চাল,ডাল,লবণ,চিনি ইত্যাদি খাদ্য সামগ্রী দেয়া হয়।

এসময় অাব্দুল হান্নান ভুঞার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন ভূঞা,সাবেরু ন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোখলেছুর রহমান বাঙ্গালী, হিমালয় গ্রুপের প্রধান মিজানুর রহমান প্রমুখ।