বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।
যশোরের নাভারনে অসুস্থ গরুর মাংস বিক্রির সময় বিক্রেতাকে জরিমানা

যশোরের নাভারনে অসুস্থ গরুর মাংস বিক্রির সময় বিক্রেতাকে জরিমানা

Advertisements

জাহিরুল মিলন, নিজস্ব প্রতিনিধি, যশোরঃ যশোরের নাভারণ বাজারে অসুস্থ গরুর মাংস বিক্রির সময় মাংস ব্যবসায়ী সোহেল রানাকে হাতে-নাতে আটক করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। আর খাদ্যের অনুপযোগী আটককৃত মাংস তাৎক্ষনিক কেরাসিন ঢেলে নষ্ট করার পর মাটিতে পুতে ফেলা হয়েছে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে শার্শার নাভারন মাংসের বাজারে এই ঘটনা ঘটেছে বলে তথ্যসূত্রে জানা যায়।

মাংস ব্যবসায়ী সোহেল রানা শার্শা উপজেলার কাশিয়াডাঙ্গা গ্রামের আতিয়ার রহমানের ছেলে।

উপস্থিত বাজারের সাধারন মানুষের কাছ থেকে ঘটনার বিবরণে জানা যায়, নাভারণ বাজারের মাংস পট্টিতে সোহেল রানার মাংসের দোকানে অসুস্থ গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শার্শা উপজেলার সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সোহারাব হোসেন, ইউপি সদস্য জুলফিকর আলী জুলু, গ্রাম পুলিশ তোবারক হোসেন ও সাংবাদিক সেলিম রেজা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সোহেল রানার মাংসের দোকানে রুগ্ন গরুর মাংস বিক্রির প্রমাণ পেয়ে উপস্থিত জনসাধারণের সম্মুখে ওজন স্কেলসহ দোকানের সমস্ত মাংস জব্দ করে এবং খাদ্যের অনুপযোগী মাংস বিক্রির অপরাধে ব্যবসায়ী সোহেল রানাকে ৫০হাজার টাকা জরিমানা করে। খাদ্যের অনুপযোগী আটককৃত মাংস তাৎক্ষনিক কেরাসিন ঢেলে নষ্ট করার পর ইউপি চত্বরের পরিত্যক্ত মাটিতে পুতে ফেলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য জুলফিকর আলী জুলু জানান, নাভারণ বাজারের মাংস পট্টির সোহেল রানার মাংসের দোকানে রুগ্ন গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডলকে জানালে তিনি ইউপি চেয়ারম্যান সোহারাব হোসেনকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলেন।

hostseba.com

জনসাধারণের সম্মুখে ওজন স্কেলসহ দোকানের সমস্ত মাংস জব্দ করার কথা স্বীকার করলেও মাংস ব্যবসায়ী সোহেল রানাকে ৫০হাজার টাকা জরিমানা করার কথা অস্বীকার করেন।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান সোহারাব হোসেনের কাছে জানতে চাইলে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে তিনি বলেন, জব্দকৃত মাংশ তাৎক্ষনিক কেরাসিন ঢেলে নষ্ট করা হয়েছে।

উপজেলা স্যানিটারি ইন্সপেক্টর শেফালি খাতুনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান সোহারাব হোসেন বা জুলু মেম্বার আমাকে কিছুই জানায়নি তবে বিষয়টি আমি পরে জেনেছি।

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

bbcnews24-mujib-borso

Advertisements

অনলাইন ভোটে অংশগ্রহন করুন




Advertisements

Our English Site

© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team