বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।
সাতকানিয়ায় চাঞ্চল্যকর হাসেম হত্যাকান্ড ৫ বছর পূর্ণ হলেও এখনো হয়নি মামলার রায়

সাতকানিয়ায় চাঞ্চল্যকর হাসেম হত্যাকান্ড ৫ বছর পূর্ণ হলেও এখনো হয়নি মামলার রায়

Advertisements

সৈয়দ আক্কাস উদদীনঃ সাতকানিয়ার আলোচিত হত্যা কান্ডের ৫বছর পূর্তি হলে ও বিচার কাজ এগোয়নি মামলাটার।

জানা যায়, মামলার দুই দুইবার তদন্ত, তদন্ত রিপোর্ট আমলে নিয়ে পলাতক আসামীর বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট ইস্যু, আসামীদের মাল ক্রোক পরোয়ানা জারী এসবেই গেলো পূর্ণ ৫ বছর৷ বিচারিক আদালতের দরজায় প্রবেশ হয়নি মামলাটি ৷ মামলার বাদীপক্ষ নিহত ভিকটিম আবুল হাশেম সিকদারের বড় ভাই আবুল কাশেম সিকদার এসব অভিযোগ করে মামলাটি ট্রায়াল বিলম্বিত হওয়ার ব্যাপারে হতাশা প্রকাশ করেছেন ৷ সাতকানিয়া থানার চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ড মামলাটি দ্রুত বিচারের জন্য “দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে” পাঠানোর জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তেক্ষেপ কামনা করছেন৷

মামলার এজাহার ও চার্জশীট শীট সূত্রে জানা যায় , ২০১৫সালে সাতকানিয়ার বাজালিয়ার ইউনিয়নের মাহালিয়া গ্রামের একটি মসজিদ ও ফোরকানিয়া মাদ্রাসা নির্মাণের ওয়াক্ফকৃত ভূমির মালিকানা নিয়ে এলাকার আমিনুর রহমান গং পরিবারের সংগে মসজিদ কমিটির বিরোধ হলে স্থানীয় গ্রাম আদালতে নিস্পত্তি হওয়ার পরও গ্রাম আদালতের সিদ্ধান্ত অমান্য করে আমিনুর রহমান পক্ষের লোকজন ওয়াক্ফকৃত ১৬ গন্ডা ভূমি জবরদখলকালে মসজিদ কমিটির লোকজন তাদের বাধা প্রদান করলে আমিনুর রহমানের লোকজন পুর্বরিকল্পিতভাবে মসজিদ কমিটির সভাপতি ও দাতা সদস্য আবু মুছা , সেক্রেটারি এযার মোহাম্মদ ও দাতা সদস্য আবুল হাশেমের ওপর পূর্বপরিকল্পিতভাবে লোহার রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে দিন দুপুরে নৃশংসভাবে এলোপাতাড়ি হামলা চালায়৷

এই সন্ত্রাসী হামলায় মাথায় মারাত্বক আহত আবু মুছা ও আবুল হাশেমকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মসজিদ কমিটির সভাপতি আবু মুছা সিকদার কিছুটা সুস্থ হয়ে ১১জানুয়ারী, ২০১৫ তারিখ সাতকানিয়া থানায় ১৭ জনকে আসামী করে মামলা (যার নং ১৪(১)১৫ ) দায়ের করে৷ হামলায় মারাত্মক জখমপ্রাপ্ত আবুল হাশেম সিকদার চমেক হাসপাতালে লাইফসাপোর্টে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৩ জানুয়ারি মৃত্যুবরণ করলে মামলাটি হত্যা মামলায় রুপান্তরিত হয় ৷ সাতকানিয়া থানা পুলিশ প্রথম মামলাটি তদন্ত শেষে ঐ বছরের সেপ্টেম্বর মাসে এজাহার নামীয় ১৭ আসামীর মধ্যে ১০ জন আসামীর বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করে ৷

বাদীপক্ষ উক্ত চার্জশীটের ক্রটির অভিযোগ করে নারাজী পিটিশন দিলে আদালত তা মন্জুর করে মামলা পূন তদন্ত পুর্বক সম্পুরক চাঁজশীট দাখিলের জন্য পিবিআই কে নির্দেশনা সহ আদেশ প্রদান করে৷ পিবিআই উক্ত হত্যা মামলা দীর্ঘ তদন্ত শেষে থানা পুলিশের চাজশীটের ১০ আসামী সহ এজাহার নামীয় ১৪ আসামীর বিরুদ্ধে সম্পুরক চার্জশীট দাখিল করেন ৷

hostseba.com

পরবর্তীতে বাদী আবারো নারাজী পিটিশন দিলে আদালত উক্ত দরখাস্ত শুনানিয়ান্তে ১৭ আসামীর মধ্যে ১জন ছাড়া সব আসামীর বিরুদ্ধে অপরাধ আমলে নেয়৷ ইতিমধ্যে বিভিন্ন সময় পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে এজাহার নামীয় ও চার্জশীট ভূক্ত ৮ আসামী আমিনুর রহমান , মোস্তাফিজুর রহমান , মাশুকুর রহমান মাহাফুজ , হারুন রশিদ , বজল রশিদ , জাফর আহমদ ও আনোয়ার প্রকাশ মানিক জেল খেটে হাইকোর্ট থেকে জামিনে বের হয়৷

অপর এজাহার নামীয় চাজশীট ভুক্ত ৬ আসামী সোলাইমান, রাশেদ হোসেন , তৌহিদুর রহমান, জকরিয়া ও সেলিম পলাতক ৷ পরবতীতে পলাতক আসামীদের বিরুদ্ধে আদালতের ক্রোকী পরওয়ানা জারী হয়৷ হত্যা মামলার প্রধান আসামী মুজিবুর রহমান হঠাৎ গতমাসে কোর্ট সারেন্ডার করলে বর্তমানে জেল হাজতে ৷

এদিকে দীর্ঘ ৫ বছর ধরে মামলাটি বিচার শুরু না হওয়া ও অন্যদিকে জামিনে এসে কতিপয় আসামীদের মামলা প্রত্যাহার অন্যথায় বাদীর জায়গা জমি জবরদখলের হুমকি অব্যাহত থাকায় মামলা পরিচালনাকারী আবুল কাশেম এলাকায় যেতে সাহস না পেয়ে শহরে থাকেন ৷

তিনি জানান, ” আমার প্রিয় ছোট ভাই আবুল হাশেমকে হত্যা করে আসামীরা ক্ষান্ত হয়নি৷ হত্যা মামলায় তদবীর করে বিচার চাওয়ায় হত্যা মামলার পলাতক আসামির রাশেদ, তৌহিদ ও আসামী জাফরের ছেলে দেলোয়ার হোসেন সহ কয়েক যুবক ২০১৫ সালের জানুয়ারী ৯ জানুয়ারি আমাকে অপহরণপূর্বক হত্যাচেষ্টা চালিয়েছে৷ উক্ত ঘটনায় অপহরণপূবক হত্যা চেষ্টার দঃবিঃ আইনে আমি বাদী হয়ে মামলা করেছি৷ এখন হত্যা ও অপহরণ মামলার কতিপয় আসামী প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ভাবে প্রাননাশের হুমকি অব্যাহত রয়েছে৷

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

bbcnews24-mujib-borso

Advertisements

অনলাইন ভোটে অংশগ্রহন করুন




Advertisements

Our English Site

© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team