বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:৩৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।
ব্রেকিং নিউজ :
দেলদুয়ার উপজেলা সদর ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন। বাঁশখালীতে মুক্তিযোদ্ধার বসতঘরে হামলা ও ভাংচুর বেনাপোল সীমান্তে দালালসহ ৫৪ জন আটক শার্শার নাভারনে মিজানের বৃক্ষরোপণ ও বিতরন অনুষ্ঠান শার্শা উপজেলায় লবনের বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে সেন্ট্রাল লায়ন্স ও লিও ক্লাব সাতক্ষীরায় ট্রাকের ধাক্কায় নছিমন চালক এখছার নিহত। কেশবপুরে ৮দলীয় কাবাডি গড়ভাঙ্গা ইসলামীয়া দাখিল মাদ্রাসা চ্যাম্পিয়ন কক্সবাজার শহরের বার্মিজ মার্কেট এলাকায় ছিনতাইকারীর চুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র আহত। দক্ষিন জেলা যুবলীগের মত বিনিময় সভায় সাতকানিয়া উপজেলা যুবলীগ নেতৃবৃন্দ
বেনাপোলে ধর্ষনের পর তরুনীর মৃত্যু; আত্নহত্যার অভিযোগ

বেনাপোলে ধর্ষনের পর তরুনীর মৃত্যু; আত্নহত্যার অভিযোগ

Advertisements

জাহিরুল মিলন, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বেনাপোলে সোনামনি ওরফে টুনু (১৬) নামে গলায় ওড়না পেচানো এক তরুনীর মৃতদেহ পাওয়া গেছে। জানা গেছে গণধর্ষণের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (০৭ অক্টোবর) রাতে বেনাপোলের বড় আচড়া গ্রামের লিটন এর বাড়িতে এই ঘটনা ঘটেছে।

ধর্ষনের শিকার তরুনী যশোর জেলার মনিরামপুর থানার ময়নুদ্দিনের মেয়ে। সে ওই গ্রামে লিটনের বাড়িতে ভাড়া থাকত তার বোনের সাথে।

মেয়েটিকে ধর্ষনকারীরা হল- বেনাপোল পোর্ট থানার বড়আঁচড়া গ্রামের শহিদের ছেলে ভরসা (২০) ও তার চাচাতো ভাই রফিকুল ইসলামের ছেলে রাকিব হোসেন (২১) এবং একই থানার গাতিপাড়া গ্রামের সাগর হোসেনের ছেলে সাব্বির হোসেন (১৬)।

স্থানীয়সুত্রে জানা যায়, শুক্রবার বেলা ৪ টার সময় টুনু রাকিবের ডাকে তার চাচাতো ভাই ভরসাদের বাড়িতে যায় জুথি নামে একটি মেয়েকে সাথে নিয়ে। এসময় ওই বাড়িতে ভরসার বাবা মা কেউ ছিল না । টুনু ভরসাদের ঘরে উঠার কিছু সময় পর জুথি ওই বাড়ি থেকে চলে আসে।

hostseba.com

এরপর টুনুর বড় বোন মর্জিনা বাড়িতে এসে তার বোনকে না পেয়ে অনেক খোজাখুজির পর মেয়েটি বাড়ি আসে। সে কোথায় ছিল তা তার বোন জানতে চাইলে সে বার বার মিথ্যা কথা বলতে থাকে। এক পর্যায়ে রাকিবের মা রুপালী বেগম এসে মেয়েটিকে মারতে যায় এবং বলে সে তার ছেলে ও ভাসুরের ছেলে ভরসার সাথে তার ভাসুর শহিদের বাড়িতে সময় কাটিয়েছে।

এতে করে গ্রামের লোক কানা ঘুষা করতে থাকে । পরে রাত ৮ টার দিকে গলায় ওড়না বাধা অবস্থায় তাকে পাওয়া যায়। তবে একটি সূত্র দাবি করে বলে মেয়েটি নিজ ইচ্ছায় দারিদ্রতার কারনে অনৈতিক কাজ করে থাকতে পারে।

জানতে চাইলে মেয়েটির বোন মর্জিনা কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, তার বোনকে ওরা ফুসলিয়ে নিয়ে জোর করে ধর্ষন করেছে। ঘটনাটি জানাজানি হলে সে তার বোনকে বকাঝকা করলে সে সুযোগ বুঝে গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করে।

বাড়ির পাশের আসমা খাতুন বলেন, টুনুর বড় বোন মর্জিনার শিশু সন্তানকে টুনু রাখত এবং মর্জিনা একটি হোটেলে রান্নার কাজ করত। ওই বাচ্চার কান্নার চিৎকারে দৌড়ে এসে জানালা দিয়ে দেখা যায় টুনু গলায় দড়ি দেওয়া অবস্থায় ঝুলছে। তখন জানালা দরজা ভেঙ্গে ঘরের ভিতর প্রবেশ করে টুনুকে উদ্ধার করে বেনাপোল রজনী ক্লিনিক এরপর নাভারন বুরুজ বাগান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ডাক্তাররা তাকে মৃত্যু বলে ঘোষনা করেন।

রাকিবের মা রুপালী বেগমের নিকট বিষয়টি জানতে চাইলে সে তাকে গালাগালি করে নাই বলে জানায় । তবে টুনু ও তার ছেলে সহ আরো দুইজন তার ভাসুরের ঘরে ছিল বলে স্বীকার করেন।

এ ব্যাপারে ভরসার পিতা শহিদ হোসেন ও মা বিউটি খাতুন বলেন, আমার ছেলে এ রকম কাজ করতেই পারে না। সে গ্রামে একজন ভালো ছেলে হিসাবে পরিচিত। মেডিকেল রিপোর্ট আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে তার ছেলে দোষি কিনা।

তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ভরসা, রাকিব ও সাব্বির পলাতক রয়েছে বলে এলাকাবাসি জানান।

বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মামুন খান বলেন, আমরা ধর্ষন হয়েছি কিনা বলতে পারব না। তবে তাকে গলায় ওড়না বাধা অবস্থান পাওয়া গেছে। তার শারীরীক ও পোষ্টমর্টেম পরীক্ষার জন্য যশোর মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ডাক্তারী পরীক্ষার রিপোর্টে সব জানা যাবে। তবে এ ঘটনায় বেনাপোল পোর্ট থানার একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে।

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

Advertisements

অনলাইন ভোটে অংশগ্রহন করুন




Advertisements

Our English Site

© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team