1. seopay01833@gmail.com : Reporter : Reporter
  2. fhbadshah95@gmail.com : MJHossain : M J Hossain
  3. g21@exnik.com : isaac10j54517 :
  4. Janet-Baader96@picklez.org : janetbaader69 :
  5. tristan@miki8.xyz : katherinflower :
  6. makaylafriday74@any.intained.com : makaylafriday8 :
  7. mdrakibhasan752@gmail.com : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. g39@exnik.com : meredithbriley :
  9. muhibbbc1@gmail.com : Muhibullah Chy : Muhibullah Chy
  10. olamcevoy@baby.discopied.com : olamcevoy1234 :
  11. g2@exnik.com : roseannaoreily4 :
  12. b13@exnik.com : sebastianstanfor :
  13. g29@exnik.com : tangelamedina :
  14. g24@exnik.com : teenaligar6 :
  15. b15@exnik.com : xugmerri6352 :
  16. g16@exnik.com : yzvhildegarde :

শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১০:৪২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।
Untitled-1
টুইন টাওয়ারে হামলা হয়েছিল যেভাবে

টুইন টাওয়ারে হামলা হয়েছিল যেভাবে

Advertisements

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ঃ ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এক বেদনার দিন। এ দিনে আল কায়েদা জঙ্গিরা চারটি উড়োজাহাজ ছিনতাই করে নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ারে, পেন্টাগনে আর পেনসিলভিয়ায় হামলা করে। ভয়াবহ এ হামলায় মারা যায় প্রায় ৩ হাজার মানুষ। সেপ্টেম্বরের ১১ তারিখে এ হামলা হওয়ায় এটি ‘নাইন ইলেভেন’ নামে পরিচিত। কিন্তু এ হামলা কীভাবে ঘটেছিল, তা নিয়ে আজও  বিশ্ববাসীর জানার আগ্রহ শেষ হয়নি। চলুন দেখা যাক, কীভাবে এ ভয়াবহ হামলাটি করা হয়।

টুইন টাওয়ারে হামলা : আল কায়েদা জঙ্গিরা প্রথমেই হামলা করে নিউয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার বা টুইন টাওয়ারে। ১১০ তলা বিশিষ্ট টুইন টাওয়ার তৎকালীন সময়ে বিশ্বের সবচেয় উঁচু ভবন ছিল। এ ভবনে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে আমেরিকান এয়ারলাইনসের বোয়িং-৭৬৭ উড়োজাহাজটি আছড়ে পড়ে।

উড়োজাহাজটিতে ২০ হাজার গ্যালন জেট ফুয়েল ভর্তি ছিল। এটি টুইন টাওয়ারের উত্তর দিকের ভবনের ৮০তম তলায় ঢুকে পড়লে এতে আগুন ধরে যায়। নিমিষেই কয়েক শত মানুষ নিহত হন, আর আটকা পড়েন হাজারও মানুষ।

টুইন টাওযারের উত্তর ভবনে হামলার ঠিক ১৮ মিনিট পর, সকাল ৯টা ০৩ মিনিটে দক্ষিণ ভবনের ৬০তম তলায় হামলা করে ইউনাইটেড এয়ারলাইনসের আরেকটি বোয়িং-৭৬৭ উড়োজাহাজ। এ দুই হামলায় সৃষ্ট আগুনে ভবনটির কাঠামো ভেঙে পড়ে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে টুইন টাওয়ারের উত্তর দিকের ভবনটি ভেঙে পড়ে। ভবনটি ধসে পড়ার সময় মাত্র ছয়জনকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছিল। গুরুতর আহত অবস্থায় প্রায় ১০ হাজার জনকে উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পেন্টাগনে হামলা : যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সদর দপ্তর পেন্টাগনে। নিরাপত্তার চাদরে ঘেরা এ ভবনটিও জঙ্গিদের হামলা থেকে বাদ যায়নি। টুইন টাওয়ারে হামলার প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা পর পেন্টাগনে হামলা করা হয়। সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে পেন্টাগনের পশ্চিম দিকে আঘাত করে আমেরিকান এয়ারলাইনসের অপর এক বোয়িং-৭৫৭ উড়োজাহাজ। পেন্টাগন হামলায় সামরিক ও বেসামরিক মিলিয়ে মোট ১২৫ জন নিহত হয়। হামলাটি চালানোর জন্য জিম্মি করা বিমানটির ভেতরে থাকা ৬৪ জন যাত্রী, বৈমানিক ও কর্মকর্তা নিহত হন।

পেনসিলভিয়ায় হামলা : এটিকে ঠিক হামলা না বলে দুর্ঘটনা বলা যেতে পারে। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৯টায় ইউনাইটেডের এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইট নিউজার্সি থেকে ক্যালিফোর্নিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। উড়ে যাওয়ার পরই এটি ছিনতাই করা হয়। এ বিমানের যাত্রীরা ইতিমধ্যেই টুইন টাওয়ার হামলার কথা জেনে গেছেন। জঙ্গিরা তাদের কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছানোর আগেই সকাল ১০টা ১০ মিনিটে পশ্চিম পেনসিলভানিয়ার শ্যাংকসভিলের কাছে একটি ফাঁকা মাঠে বিধ্বস্ত হয়। এ উড়োজাহাজটিতে থাকা ৪৪ জনের সবাই এ দুর্ঘটনায় নিহত হন।

hostseba.com
আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

Advertisements

অনলাইন ভোটে অংশগ্রহন করুন




Advertisements

Our English Site

© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team