1. seopay01833@gmail.com : Reporter : Reporter
  2. fhbadshah95@gmail.com : MJHossain : M J Hossain
  3. g21@exnik.com : isaac10j54517 :
  4. Janet-Baader96@picklez.org : janetbaader69 :
  5. tristan@miki8.xyz : katherinflower :
  6. makaylafriday74@any.intained.com : makaylafriday8 :
  7. mdrakibhasan752@gmail.com : Rakib Hasan : Rakib Hasan
  8. g39@exnik.com : meredithbriley :
  9. muhibbbc1@gmail.com : Muhibullah Chy : Muhibullah Chy
  10. olamcevoy@baby.discopied.com : olamcevoy1234 :
  11. g2@exnik.com : roseannaoreily4 :
  12. b13@exnik.com : sebastianstanfor :
  13. g29@exnik.com : tangelamedina :
  14. g24@exnik.com : teenaligar6 :
  15. b15@exnik.com : xugmerri6352 :
  16. g16@exnik.com : yzvhildegarde :

মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ০৭:০৭ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।

দাগনভূঁঞায় কৃষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

Advertisements

Print Friendly, PDF & Email

ফেনী প্রতিনিধি: ফেনীর দাগনভূঞায় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রাম ও চাঁদপুর কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের ‌অর্থায়নে স্থাপিত রোপা আউশ ব্রি ধান ৪৮ প্রদর্শনী বাস্তবায়নে মাঠ দিবস বৃহস্পতিবার(২২শে আগস্ট) সকালে উপজেলার রামনগর ইউনিয়নে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ জয়েন উদ্দিন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ রাফিউল ইসলামের সভাপতিত্বে ও উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মারুফের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখানে, রামনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাস্টার এ কে এম কামাল উদ্দিন, সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ কামাল হোসেন, উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ জামাল হোসেন, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা তোফায়েল আহমেদ ও মোঃ সফিক উল্যাহ প্রমুখ । মাঠ দিবসের অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, আউশ ধান হচ্ছে আমাদের প্রকৃতির সাথে মানানসই স্বাভাবিক দানাদার ফসল। সামান্য সেচেই আউশ ধান উৎপাদন সম্ভব।

আউশ উৎপাদনে খরচ কম। রবি ফসল কাটার পর জমি ফেলে না রেখে আউশ আবাদ করা যায়। আমাদের উৎপাদিত ধানের সিংহভাগই আসে বোরো আবাদ থেকে।

কিন্তু বোরো আবাদে প্রচুর পরিমানে পানির প্রয়োজন হয়। এতে খরচও বেশী লাগে। বোরো ধান কর্তনের সময় শিলা বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের আশংকা থাকে।চাষের ব্যয় হ্রাস, পানির সাশ্রয়ী ব্যবহার, কর্তনের সময়ের প্রাকৃতিক ঝুঁকি হ্রাস, গবাদি পশুর খাদ্য সরবরাহ বৃদ্ধি এবং সর্বোপরি ধানের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য আউশ আবাদ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন এবং বীজ সংরক্ষণ কলা কৌশল প্রযুক্তি, ধানের চারা সারিতে রোপণ, ক্ষতিকর পোকামাকড় দমনের পাসিং প্রযুক্তি ব্যবহার সহ ডিজিটাল কৃষি সেবা ব্যবহার সম্পর্কে কৃষকদের পরামর্শ প্রদান করা হয়।

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

Advertisements

অনলাইন ভোটে অংশগ্রহন করুন




Advertisements

Our English Site

© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team