বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯, ০৮:০৮ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।
ব্রেকিং নিউজ :
থাই ব্যবসায়ী মেয়ের পাত্র খুঁজছেন, দেবেন লাখো ডলার মোদিকে অভিনন্দন জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধান কাটার ছবি দিয়ে গোলাম রাব্বানী সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল স্বামীকে ৭ টুকরো করে হত্যা : স্ত্রীসহ ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড চট্টগ্রামে বাস থেকে পড়ে হেলপার নিহত সীতাকুণ্ডে পুলিশ- জেলে সংঘর্ষের ঘটনায় ত্রিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত , দুই এসআই প্রত্যাহার আমাশয় রোগীর চিকিৎসায় হোমিও সমাধান চট্টগ্রামে বস্তিগুলোই মাদকের স্বর্গরাজ্য প্রতিবন্ধি ব্যক্তির নেতৃত্ব বিকাশ ও স্ব-সহায়ক ও সমাজ ভিত্তিক দল ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত আগামী ৫ জুন পবিত্র ঈদুল ফিতর! এগিয়ে নরেন্দ্র মোদি,দিদির মাথায় হাত

hostseba.com

গৃহবধু সোনিয়ার মৃত্যু ছিল প্ররোচনামুলক আত্মহত্যা।

গৃহবধু সোনিয়ার মৃত্যু ছিল প্ররোচনামুলক আত্মহত্যা।

hostseba.com

বিবিসিনিউজ২৪ডেক্স:ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার গোয়ালখালি গ্রামের গৃহবধু সোনিয়ার মৃত্যু ছিল প্ররোচনামুলক আত্মহত্যা। এ ঘটনার জন্য দায়ী তার শাশুড়ি মর্জিনা খাতুন। আত্মহত্যা করার আগে সোনিয়া একটি নোট লিখে রেখে যায়। সেখানে তার মৃত্যুর জন্য শাশুড়িকে দ্বায়ী করে।

স্বামীর কাছে যেতে না দেয়া, রান্না ভালো হলেও রাগারাগি করা, স্বামীর সঙ্গে গল্প করলে বকা-ঝকা করাসহ নানা বিষয় নিয়ে শাশুড়ি তাকে মানসিক ভাবে নির্যাতন করতো। কিন্তু সোনিয়ার মৃত্যু নিয়ে যে গ্রাম্য রাজনীতি ও দলাদলি শুরু হয় তা তার ময়না তদন্ত রিপোর্ট আসার পর অবসান ঘটেছে। অভিযোগ উঠেছে কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তি মৃত্যুকে পুঁজি করে হত্যা মামলা ও বাড়িঘর ভাংচুরের মতো ঘটনা ঘটায়।

পাল্টাপাল্টি বাড়ি ভাংজরের পাশাপাশি গ্রাম্য মাতব্বরদের নামে করা হয় মামলা। বিষয়টি নিরয়ে বিপাকে পড়ে পুলিশ। সরেজমিন এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রেমের সর্ম্পকের জেরে প্রায় ১ বছর আগে শৈলকুপা উপজেলার গোয়ালখালি গ্রামের ফিরোজ হোসেনের মেয়ে সোনিয়ার বিয়ে হয় একই গ্রামের বাদশা হোসেনের ছেলে সজিবের সঙ্গে। বিয়ের পর থেকে শ্বশুর বাড়ির লোকজনের সঙ্গে বনিবনা হচ্ছিল না সোনিয়ার। পাশাপাশি বাড়ি আর সোনিয়ার পরিবারের লোকজন গরীব হওয়ায় সোনিয়ার শাশুড়ি মর্জিনা খাতুন মেনে নিতে পারছিলেন না। স্বামীর সঙ্গে ভালো সম্পর্ক ছিল সোনিয়ার। ভালবেসে বিয়ে করায় দু’জনের মাঝে সম্পর্ক ছিল খুব ভালো। দিনের পর দিন পিতার বাড়িতে যেতে না পারা ও বদ মেজাজি শাশুড়ির দুর্ব্যবহারে অতিষ্ঠ হয়ে গত ২১শে এপ্রিল ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করে সোনিয়া। সোনিয়ার মৃত্যুর পর মামলা গ্রহনের দাবীতে ঝিনাইদহ-কুষ্টিয়া মহাসড়ক অবরোধ করা হয়। স্বামী সজিবের বাড়ি ভাংচুর লুটপাট করা হয়। তবে প্ররোচনামুলক আত্মহত্যার মামলাটি এখনো হয়নি। সোনিয়ার শাশুড়ি মর্জিনা খাতুন ছিল তার মৃত্যুর অন্যতম কারণ। মুলত তার নির্যাতনেই আত্মহত্যার পথ বেচে নেয় সোনিয়া। এ ব্যাপারে শৈলকুপা থানার ওসি কাজী আয়ুবুর রহমান বলেন, সোনিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় ওই সময় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়। পরবর্তীতে সোনিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে যৌতুকের কারণে নির্যাতনে হত্যার অভিযোগ এনে আরেকটি মামলা করে। কিন্তু তার ময়নাতদন্তের রিপোর্টে আত্মহত্যার কথাটি এসেছে। এখন মামলাটি প্ররোচনামুলক আত্মহত্যার দিকে মোড় নিবে। ওসি বলেন সোনিয়ার শাশুড়িসহ দায়ী ব্যক্তিরা ছাড় পাবে না।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

onestream

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bbc_news_sidebar_Ads_1




Sidbar_gif

© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team