মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:০৬ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।
মাঝ আকাশে ইঞ্জিল বিকল হয়ে পড়ায় চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ

মাঝ আকাশে ইঞ্জিল বিকল হয়ে পড়ায় চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ

মাঝ আকাশে ইঞ্জিল বিকল হয়ে পড়ায় চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ
মাঝ আকাশে ইঞ্জিল বিকল হয়ে পড়ায় চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ
Advertisements


বিবিসিনিউজ২৪,ডেস্কঃ মাঝ আকাশে ইঞ্জিল বিকল হয়ে পড়ায় চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করেছে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইট। সোমবার সন্ধ্যায় সিঙ্গাপুর থেকে ঢাকাগামী ফ্লাইটির ইঞ্জিল বিকল হয়ে যাওয়ায় দ্রুত এটি চট্টগ্রামে অবতরণ করে। 

ফ্লাইটে ১০০ জন যাত্রী এবং ৮ জন কেবিন ক্রু ছিলেন। তারা সবাই নিরাপদ রয়েছেন। তবে বিমানে থাকা যাত্রীরা জরুরী অবতরণের খবর পাওয়ার পর তাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। 

বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষও দুর্ঘটনা এড়াতে নিরাপত্তামূলক যাবতীয় ব্যবস্থা নিয়েছিল। বিমানটি নিরাপদে অবতরণ করায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে যাত্রীদের সবাই।

সিভিল এভিয়শনের কাজী খায়রুল কবির সমকালকে বলেন, সিঙ্গাপুর থেকে বিমানের ফ্লাইটটি ঢাকায় অবতরণ করার কথা ছিল। কিন্তু উড্ডয়নের পরে হঠাৎ ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়ার কারণে তারা পার্শ্ববর্তী বিমানবন্দর হিসেবে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে ।

বিমানে থাকা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হায়দার রোটন চৌধুরী বলেন, ‌‘সিঙ্গাপুর বিমানবন্দর থেকে স্থানীয় সময় ৩টা ৫০ মিনিটে বিমানটি উড্ডয়ন করে। কিন্তু মিয়ানমার অতিক্রমের পর একটি ইঞ্জিন নষ্ট হওয়ার কথা বলে বিমানের পাইলট। তবে পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে যাত্রীদের বার বার আশ্বস্থ করেন পাইলট। এক পর্যায়ে ঢাকায় আবহাওয়া খারাপ থাকায় বিমানটি চট্টগ্রামে অবতরণ করছে বলে জানানো হয় ককপিট থেকে। এসময় সবার মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। যাত্রীদের অনেকে সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করে উচ্চস্বরে দোয়-দরুদ পড়তে থাকেন। বিমানটি নামার সময় আতঙ্কিত ছিলাম সবাই। কিন্তু পাইলটের দক্ষতায় সুন্দরভাবে আমরা অবতরণ করতে পেরেছি।’  

hostseba.com

জানা গেছে বিমানটি জরুরি অবতরণের বার্তা পাওয়ার পর পর সতকর্তামূলক বিভিন্ন ব্যবস্থা নিতে থাকে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। দমকল বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতরকে খবর দেওয়া হয়। বিমানবন্দরে যাতে বড় ধরনের কোন ঝুঁকি তৈরি না হয় সেজন্য সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে বলা হয় সবাইকে।

এ প্রসঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের সহাকারি পরিচালক মো. জসীম উদ্দিন বলেন, ‘বিমানবন্দর ব্যবস্থাপক একটি বিমান জরুরি অবতরণ করবে বলে আমাদের ফায়ার ইউনিটকে প্রস্তুত থাকার জন্য বলেন। আমরাও সাথে সাথে ফোর্স পাঠাই ঘটনাস্থলে। কিন্তু বিমানটি কোন দুর্ঘটনা ছাড়ায় অবতরণ করায় আমাদের ইউনিট  পরবর্তীতে ফিরে এসেছে।’

আপনার মতামত দিন
bbc-news-24-ads

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

Advertisements

অনলাইন ভোটে অংশগ্রহন করুন




Advertisements

Our English Site

© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team