শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৩০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের নিউজে আপনাকে স্বাগতম... আপনি ও চাইলে আমাদের পরিবারের একজন হতে পারেন । আজই যোগাযোগ করুন ।
ব্রেকিং নিউজ :
বিবিসিনিউজ২৪ এর ইফতার ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন থাই ব্যবসায়ী মেয়ের পাত্র খুঁজছেন, দেবেন লাখো ডলার যশোরে ট্রেনে কেটে বৃদ্ধার মৃত্যু ! জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ঝিকরগাছায় দুই স্থানে আলোচনা সভা মংলা বন্দরের নতুন চেয়ারম্যান রিয়াল এডমিরাল এম মোজাম্মেল হক জামালপুর থেকে নিখোঁজ যুবকের লাশ শেরপুরে উদ্ধার মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত বাংলা সাহিত্যকে মধ্যযুগ থেকে আধুনিক যুগে নিয়ে এসেছিলেন ডেপুটি স্পিকার বঞ্চিত শিশু অধিকার ফাউন্ডেশনের ঈদ পূর্ণমিলনী ও সাংগঠনিক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত। যশোরের ভাসমান সেতু পরিদর্শন করেন ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া হজ্ব কাফেলার নামে চলছে হজ্ব যাত্রী হয়রানি ও ব্যবস্থাপনায় শত অনিয়ম। দ্রুতরোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এডভোকেট সাইফুদ্দিন খালেদের সেনাবাহিনীর উপর সন্ত্রাসী হামলার রেশ না কাটতেই আবার হামলা

বিড়ম্বনার শেষ নাই ট্রাফিক পুলিশের!

Advertisements

বিবিসিনিউজ২৪,ডেস্কঃ দিনের পর দিন যদি নিরলসভাবে কাজ করে যায় তারা হলেন ট্রাফিক পুলিশ। বিড়ম্বনার শেষ থাকে না তাদের।তারপরে ও তারা নিজ দায়িত্বে কাজ করে যায়।পথের ধূলা যেন তাদের নিত্যদিনের সঙ্গী।

বিড়ম্বনার শেষ নাই ট্রাফিক পুলিশের

যেকোন প্রাকৃতিক দূর্যোগে ও তারা কাজ করে যায়। রাস্তার ধূলাবালির কারণে তারা বিভিন্ন রোগে আক্রার হন। মাথা ব্যথা,জ্বর সর্দি কাশি যেন তাদের নিত্যদিনের সঙ্গী।শুধুমাত্র যানজটমুক্ত করা ও বাংলাদেশের মানুষকে সুশৃঙ্খলভাবে পথ চলানো শিখাতে তারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে যায়।

বিড়ম্বনার শেষ নাই ট্রাফিক পুলিশের

কিন্তু সবাই তু আর এক রকম নই।দেখতে মানুষের মতো হলেও কিছু মানুষ অমানুষের মতো কাজ করে রাস্তায় চলার পথে।ট্রাফিক সিগনাল দেওয়ার পর ও কিছু ক্ষমতাবান ও প্রভাবশালী মানুষ তাদের সাথে ঊশৃংখল আচরণ করে।আইন অমান্য করায় যদি আইনের আওতায় আনা হয় তাহলে বিভিন্ন হুমকি দিয়ে রাজনৈতিক প্রভাব দেখিয়ে তাদের অপমান করে।

বিড়ম্বনার শেষ নাই ট্রাফিক পুলিশের

বিশেষ করে এসব আচরণ প্রাইভেট গাড়ি ও বাইক চালকদের ক্ষেত্রে বেশি দেখা যায়।ট্রাফিক আইন অমান্যের প্রেক্ষিতে মামলা দিলেও সমস্যা।প্রত্যেকের মুখে মুখে এক কথা ঘুষ না দেওয়ার কারণে মামলা দেওয়া হয়েছে।

বিড়ম্বনার শেষ নাই ট্রাফিক পুলিশের


কিন্তু এসব কে দেখে?পৃথিবীর সব মানুষের একটা রুটিন থাকলে ও ট্রাফিকদের রুটিন নাই।দুপুরের ভাত রাতে।সব এলো মেলো।তারই প্রেক্ষিতে ট্রাফিক সার্জেন্ট জলিল মিয়া বলেন আমাদের মতো কষ্ট কে করে?একটা মানুষ যদি মাটিও কাটে তারা কাজ শেষে টেনশনমুক্ত থাকে।

hostseba.com
বিড়ম্বনার শেষ নাই ট্রাফিক পুলিশের

কোন প্রভাবশালীর কবলে পড়ে বকা শুনতে হয় না।যা আমরা সম্মুখীন হই।তারপরে ও আমরা সবকিছু সুশৃঙ্খল ও আইনের আওতায় নিয়ে আসি। সুশৃঙ্খল ও ট্রাফিককমুক্ত করতে আমরা সর্বদায় নিরলস ভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাবো।

আপনার মতামত দিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Advertisements

Comments are closed.

Advertisements

অনলাইন ভোটে অংশগ্রহন করুন




Advertisements

Our English Site

© All rights reserved © 2017-27 Bbcnews24.com.bd
Theme Developed BY ANI TV Team