হঠাৎ বাতাসে সারাদেশে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি!

0
89
হঠাৎ বাতাসে সারাদেশে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি BBCNEWS24
হঠাৎ বাতাসে সারাদেশে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি BBCNEWS24

হঠাৎ বাতাসে সারাদেশে

ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

বিবিসিনিউজ২৪ ডেস্কঃ সিলেটের বিশ্বনাথে প্রচন্ড ঝড়-তুফানে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। শুক্রবার বিকেলে ঝড়-তুফানের সাথে ছিল শিলাবৃষ্টিও। ফলে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গাছগাছালি উপড়ে পড়ে। ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় কাঁচা-আধাপাকা ঘরবাড়ির। পাশাপাশি, ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে ফসলেরও।

জানা গেছে, ঝড় শুরুর সাথে সাথেই বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। গাছ পড়ে অনেক স্থানেই ছিড়ে যায় বিদ্যুতের তাঁর। শুক্রবার সকালে আবহাওয়া অনেকটা ভাল থাকলেও বিকেল ৪টার পর থেকেই আবহাওয়া প্রতিকূল হতে থাকে। প্রথমেই শুরু হয় দমকা হাওয়া। এরপর প্রচন্ডবেগে ঝড়-বৃষ্টি। সাথে শিলা বৃষ্টিও।

বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সদস্য ও এলাকাবাসী অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রচন্ড ঝড়ের কবলে পড়ে অনেক স্থানেই বড় বড় গাছ উপড়ে পড়ে। ক্ষতিগ্রস্থ হয় কাঁচা ও আধাপাকা ঘরবাড়ি। অনেক স্থানে সড়ক ও বৈদ্যুতিক তারের উপর গাছ উপড়ে পড়ার কারণে যান চলাচল সাময়িক ব্যাহত হয়। পথচারীদের পোহাতে হয় অবর্ণনীয় দূর্ভোগ। একইভাবে ঝড়ের কবলে পড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় ফসলের। তবে, তাৎক্ষণিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যায়নি।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদকপ্রাপ্ত চাষী বেলাল আহমদ ইমরান জানান, ঝড়ের ফলে ধান ও সবজির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। দমকা হাওয়ার ফলে মাটির সাথে মিশে গেছে ধান। উপড়ে পড়েছে ক্যাপসিকাম, নাগা মরিচ, বেগুন ও টমেটোর গাছ। একই কথা জানান উপজেলার বিভিন্ন এলাকার আরও কয়েকজন চাষী।

সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছয়ফুল হক, দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমির আলী ও খাজাঞ্চী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তালুকদার মো. গিয়াস উদ্দিন জানান, ঝড়ে তাদের এলাকার গাছগাছালির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এছাড়াও, হাটবাজার ও কাঁচা বাড়িঘরেরও ক্ষয়ক্ষতি হয়।

এদিকে শুক্রবার বিকেলে ঝড়-বৃষ্টি শুরুর সাথে সাথে পুরো উপজেলার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন হয়ে পড়ে। অনেক স্থানে বৈদ্যুতিক তারের উপর গাছ উপড়ে পড়ে ছিড়ে যায় তার। পল্লীবিদ্যুৎ বিশ্বনাথ জোনাল অফিসের ডিজিএম কমলেশ বর্মণ জানান, ঝড়ে বিদ্যুতের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানার চেষ্টা করছি। পাশাপাশি, বিদ্যুৎ লাইন সচল করতে বিভিন্ন জায়গায় কাজ চলছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিতাভ পরাগ তালুকদার বলেন, ঝড়-বৃষ্টিতে উপজেলার কোথাও হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তবে, অনেক জায়গায় গাছ উপড়ে পড়েছে। বিদ্যুতের তার ছিড়ে গেছে। পাশাপাশি, অনেক ঘরবাড়ির চালের টিন উড়ে গেছে। ঝড়বৃষ্টিতে এ উপজেলায় অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু এখনই এর পরিমাণ বলা যাচ্ছে না।