মায়ানমারে রোহিঙ্গা নির্যাতনে ফুঁসছে উঠছে চট্টগ্রামের মানুষ!

0
642
মায়ানমারে রোহিঙ্গা নির্যাতনে ফুঁসছে উঠছে চট্টগ্রামের মানুষ!-BBCNEWS24
মায়ানমারে রোহিঙ্গা নির্যাতনে ফুঁসছে উঠছে চট্টগ্রামের মানুষ!-BBCNEWS24

মায়ানমারে রোহিঙ্গা নির্যাতনে ফুঁসছে উঠছে চট্টগ্রামের মানুষ!

বিবিসিনিউজ২৪,ডেস্কঃ রোহিঙ্গা নির্যাতনের প্রতিবাদে ফুঁসে উঠছে চট্টগ্রামের মানুষ। চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলার উপজেলাসমুহে ইতোমধ্যে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে সাধারণ মানুষ। এরমধ্যে রয়েছে বৌদ্ধ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনও।যারা মিয়ানমারের উগ্রপন্থি বৌদ্ধ ও সামরিক জান্তার বর্বরতার তীব্র নিন্দা ও রোহিঙ্গা নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়ে ঘৃণা প্রকাশ করেছেন। এমনকি রোহিঙ্গাদের রাখাইন রাজ্য ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিসহ সহিংসতা বন্ধে জাতিসংঘের হস্তেক্ষেপ কামনা করেছেন।

চট্টগ্রাম সম্মিলিত বৌদ্ধ সমাজ নেতা বিকিরণ প্রসাদ বড়–য়া জানান, রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের নির্যাতনের প্রতিবাদে শনি ও শুক্রবার চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, পটিয়া ও কক্সবাজারের রামুতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বৌদ্ধ সমাজ। এ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারী হাজার হাজার বৌদ্ধ সমাজের লোকজন মিয়ানমারের উগ্রপন্থি বৌদ্ধ ও সেনাবাহিনীর বর্বরতার তীব্র নিন্দা ও ঘৃণা জানিয়েছেন।

বিকিরণ প্রসাদ বড়ুয়া বলেন, রোহিঙ্গা মুসলমানরা রাখাইনের সংখ্যালঘু আদিবাসী। তাদের উপর নির্মম নির্যাতন মেনে নেওয়া যায় না। পৃথিবীর সকল সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিরুদ্ধে বৌদ্ধ সমাজ সবসময় রুখে দাড়াবে। রাখাইনের সহিংসতা নিরসনে জাতীসংঘের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

রোহিঙ্গাদের ওপর রাষ্ট্রীয় নির্যাতনের প্রতিবাদে চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লায় সমাবেশ ও বিক্ষোভ করেছে সাধারণ মানুষ। সাধারণ মুসল্লি পরিষদের ব্যানারে আজ শনিবার জোহর নামাজের পর এ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেন। এর আগে সাধারণ মুসল্লি পরিষদ চকবাজার শাখা গতকাল শুক্রবার চকবাজার এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেন।

এতে মাওলানা আনোয়ারুল ইসলাম আনচারি, মোহাম্মদ ইলিয়াছ, হাশমত উল্লাহ মাসুদ, শাহেদুল ইসলামসহ বক্তরা অবিলম্বে মিয়ানমারে মুসলিমদের উপর গণহত্যা ও নির্যাতন বন্ধ করে তাদের নাগরিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। একই সাথে জাতিসংঘ, মানবাধিকার সংস্থা ও বিশ্ববাসীকে এই বর্বরতার বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

শনিবার দুপুরে নগরীর বন্দর ইপিজেড এলাকায় সাধারণ ধর্মপ্রাণ মুসুল্লিদের বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ইপিজেড মোড় থেকে শুরু হয়। সিমেন্ট ক্রসিং মোড় ঘুরে ব্যারিস্টার কলেজ গেইট এসে মিছিলটি শেষ হয়। সচেতন মুসলিম জনতার ব্যানারে এই বিক্ষোভ মিছিলে বিভিন্ন মসজিদ মাদ্রাসা এবাদত খানা ও ইবতেদায়ীর হাজার হাজার ছাত্র, স্থানীয় মুসল্লি জনতা অংশ নেন ।

মিছিল থেকে মিয়ানমারের সরকার প্রধানসহ নোবেল জয়ী অংসান সূচির পদত্যাগ, বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা ও পর্যাপ্ত ত্রান-আশ্রয় দিয়ে মানবতা বজায় রাখতে অনুরোধ জানান। বিক্ষোভকারীরা বলেন, অবিলম্বে আরাকানের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের আশ্রয় সহ ত্রাণ এবং হত্যাকান্ড নির্যাতনবন্ধ না করলে রাষ্ট্রদূত কার্যালয় ঘেরাও করা হবে।এদিকে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি নাসিমন ভবনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে গত শুক্রবার। সেখানে কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক স¤পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম বলেন, রোহিঙ্গাদের বিতাড়িত করতে মিয়ানমারের সামরিক জান্তা-পুলিশ ও মগদস্যুরা বর্বরোচিত গণহত্যা চালাচ্ছে।প্রধান বক্তা চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ স¤পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, মিয়ানমার সরকার ও তার পেটুয়া বাহিনী রাখাইন রাজ্যে একের পর এক নিরীহ রোহিঙ্গা মুসলমানদের হত্যা ও নির্যাতন চালাচ্ছে। অং সান সুচি গণতন্ত্রের কথা বলে মানুষ হত্যায় নেমেছেন।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির উদ্যোগে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী আলহাজ জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে মানববন্ধন হয়। মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন জাফরুল ইসলাম চৌধুরী। সেখানে বক্তৃতা করেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহসভাপতি আলহাজ মুহাম্মদ ইদ্রিস মিয়া, সহ-সভাপতি আলহাজ মুহাম্মদ এনামুল হক, সিনিয়র যুগ্ম স¤পাদক মো. আলী আব্বাস, সহসাধারণ স¤পাদক অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম, বোয়ালখালী পৌরসভা বিএনপির সভাপতি ও পৌর মেয়র হাজি আবুল কালাম আবু, আইনবিষয়ক স¤পাদক অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ কাশেম চৌধুরী, সাতকানিয়া পৌরসভা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক হাজি রফিকুল ইসলাম, বাঁশখালী পৌরসভা বিএনপির সভাপতি রাসেল ইকবাল মিয়া প্রমুখ।

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত সমন্বয় কমিটি নগরীর লালদীঘি জামে মসজিদে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে শনিবার। সমাবেশে সংগঠনটির প্রধান সমন্বয়ক আল্লামা এম এ মতিন মিয়ানমারে সরকারি বাহিনী কর্তৃক রোহিঙ্গা মুসলমানদের জাতিগত নিধনের তীব্র নিন্দা জানান।